অবশেষে পদত্যাগ করলেন জিম্বাবুয়ের প্রেসিডেন্ট রবার্ট মুগাবে। দেশটির পার্লামেন্টের স্পিকার জ্যাকব মুডেন্ডা একথা বলেছেন।

তাকে দেয়া এক চিঠিতে মি. মুগাবে বলেছেন, তিনি স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করছেন, এবং ক্ষমতার হস্তান্ত যাতে নির্ঝঞ্ঝাট হয় সে জন্যেই  তিনি এ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এই ঘোষণা এমন এক সময় আসে যখন পার্লামেন্টে এমপিরা তাকে অভিশংসনের একটি প্রস্তাব নিয়ে আলোচনা করছিলেন।

তবে মি. মুগাবে পদত্যাগ করেছেন এ খবর আসার পর সে প্রক্রিয়া থেমে যায়। পার্লামেন্ট সদস্যরা উল্লাসে চিৎকার করতে থাকে।

এর আগে প্রেসিডেন্ট পদ ছেড়ে দেওয়ার জন্য মুগাবের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে দেশটির ক্ষমতাসীন দল জানু-পিএফের প্রধানের পদ থেকে তাকে বরখাস্ত করা হয়। প্রেসিডেন্ট পদ ছেড়ে দেওয়ার জন্য তাকে রোববার পর্যন্ত সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছিল। ওই সময়ের মধ্য পদ না ছাড়ায় অভিশংসনের প্রক্রিয়া শুরু করা হয়।

জিম্বাবুয়ের চলমান সংকটের শুরু দুই সপ্তাহ আগে, যখন প্রেসিডেন্ট মুগাবে তার ভাইস প্রেসিডেন্ট এমারসন নানগাগওয়াকে বরখাস্ত করেন। বলা হয়, মুগাবে তার স্ত্রী গ্রেসকে দেশটির ক্ষমতায় বসাতেই বরখাস্ত করেন নানগাগওয়াকে। দেশটির সেনাবাহিনীর মধ্যে বেশ জনপ্রিয় নানগাগওয়া। তাকে বরখাস্ত করার এক সপ্তাহের মধ্যেই দেশটির নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নেয় সেনাবাহিনী। বরখাস্ত হওয়ার পর দক্ষিণ আফ্রিকায় পালিয়ে যাওয়া নানগাগওয়াও ফেরেন জিম্বাবুয়েতে। এখন সেই নানগাগওয়াকেই দেশটির পরবর্তী নেতা হচ্ছেন বলে ধারণা করছেন বিশ্লেষকেরা।

১৯৮০ সালে ব্রিটেনের কাছ থেকে স্বাধীনতা পাওয়ার পর থেকেই দেশটির ক্ষমতায় ছিলেন মুগাবে। দেশটির স্বাধীনতা অর্জনে অনন্য অবদান রয়েছে মুগাবের।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   ভেনেজুয়েলায় কারাগারে দাঙ্গা, নিহত ৩৭

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

nine − 6 =