হুমায়ুন ফরীদি ছিলেন বাংলাদেশের অভিনয়জগতের এক উজ্জ্বল তারা। ২০১২ সালের এই দিনে তিনি চলে গেছেন। মাত্র ৬০ বছর বয়স হয়েছিল তাঁর। মঞ্চ, টেলিভিশন আর চলচ্চিত্রে ছিল তাঁর অবাধ যাতায়াত। এই শিল্পী সম্পর্কে তাঁর অগ্রজ শিল্পী আল মনসুর বলেছিলেন, ‘এ মাটিতে জন্ম নেওয়া সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ চির উজ্জ্বল অভিনেতা হলো হুমায়ুন ফরীদি।’

এটি কোনো অতিমূল্যায়ন নয়। হুমায়ুন ফরীদির অভিনয় যাঁরা দেখেছেন, তাঁরা স্বীকার করবেন, এত বড় মাপের শিল্পী সত্যিই এ মাটিতে জন্ম নেওয়া শিল্পীদের মধ্যে বিরল।

শারারাত ইসলাম হুমায়ুন ফরীদির একমাত্র মেয়ে। দেবযানী নামেই তাঁকে চেনে সবাই। বাবা সম্পর্কে কখনো তাঁকে কোনো কথা বলতে শোনেনি কেউ। একদিন তাঁকে বলেছিলাম, তাঁর বাবার কথা শুনব। ঠিক হয়েছিল, কোনো একদিন দীর্ঘ সময় নিয়ে বসব আমরা, সঙ্গে থাকবে চায়ের কাপ আর আলোচনা হবে একটি বিষয়েই-হুমায়ুন ফরীদি।

গতকাল (সোমবার) বিকেলে সে কথাই মনে করিয়ে দেওয়া হয় দেবযানীকে। বাবা সম্পর্কে এখনই কিছু বলতে চান না তিনি। তবে কথা প্রসঙ্গেই উঠে আসে তাঁর কিছু পরিকল্পনার কথা, ‘বাবাকে নিয়ে একটি স্মৃতিকথার সংকলনের কথা ভাবছি। এই মাপের একজন শিল্পীকে তাঁর পরবর্তী প্রজন্ম এবং তারও পরবর্তী প্রজন্ম যেন জানতে পারে, সে জন্যই এ ভাবনা। যাঁরা বাবাকে চেনেন, তাঁরাই লিখবেন। অভিনয় জীবনের পাশাপাশি তাতে উঠে আসবে বাবার শৈশব-কৈশোর, জীবনযাপনের নানা প্রসঙ্গের কথা। আমার এই ভাবনাকে মূর্ত করে তোলার জন্য এ বছর থেকেই কাজ শুরু করব।’

এ বছর মরণোত্তর একুশে পদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন হুমায়ুন ফরীদি। দেবযানী সরকারকে কৃতজ্ঞতা জানালেন। বললেন, ‘একজন সত্যিকারের শিল্পীকে পদক দেওয়ায় পরিবারের পক্ষ থেকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।’ ফোন ছাড়ার আগে দেবযানী বললেন, ‘জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিও রয়েছে আমার বিশেষ কৃতজ্ঞতা। হুমায়ুন ফরীদি তাঁর মতো হয়ে উঠতে পেরেছিলেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আলোছায়ায় বেড়ে উঠেছিলেন বলে।’

আরও পড়ুনঃ   ‘সারা রাস্তা আঙ্কেলের হাত আমার স্কার্টের ভিতরে ছিল’

হুমায়ুন ফরীদিকে নিয়ে আরও অনেক কিছুই হতে পারত, হয়নি। তবে তাঁর মেয়ের উদ্যোগে একটি ভালো কাজ হতে যাচ্ছে, এটাও কম কথা নয়।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

7 + 6 =