নতুন বছরে প্রথম মাসের শেষ রাতে আজ দেখা মিলবে এক অসাধারণ মুহূর্তের। সন্ধ্যা ৬টা ৫১ মিনিটের দিকে পৃথিবীর ছায়া চাঁদকে সম্পূর্ণভাবে গ্রাস করবে। এ সময় সূর্য, পৃথিবী ও চাঁদ একটি রেখায় খুব কাছাকাছি অবস্থান করবে। চাঁদকে দেখা যাবে রক্তাভ নীল রঙে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, এই চন্দ্রগ্রহণ শুরু হবে বিকেল ৫টা ৩৮ মিনিটে। আর পৃথিবীর ছায়া পুরোপুরি চাঁদকে গ্রাস করবে ৬টা ৫১ মিনিটে। চন্দ্রগ্রহণ শেষ হবে রাত ১০টা ৯ মিনিটে।

বিভিন্ন কারণে এই চন্দ্রগ্রহণ গুরুত্বপূর্ণ ও বিরল একটি মুহূর্ত হতে যাচ্ছে। প্রথমত, চাঁদ এই দিনে ‘সুপার মুন’ হিসেবে দেখা দেবে। অর্থাৎ দুই মাসের ব্যবধানে আগামী ৩১ মার্চ একই রকম চন্দ্রগ্রহণের দেখা মিলবে। দ্বিতীয়ত, এটি বছরের প্রথম ‘ব্লু মুন’ বা বছরের অতিরিক্ত পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ। তৃতীয়ত, এই গ্রহণের সময় চাঁদের রং তামাটে বা অতিরিক্ত লাল হবে বলে এটি ‘কপার মুন’।

এই তিনটি ঘটনা একত্রে খুবই বিরল বলে জানিয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান মো. আবদুস ছাত্তার। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, মানবসভ্যতার শুরু থেকে চন্দ্রগ্রহণ চমকপ্রদ এক ঘটনা। প্রাচীনকালে এটি অনেকের কাছে ভীতিকর ব্যাপার ছিল। তবে বিজ্ঞানমনস্ক ও আধুনিক মানুষেরা এটি কৌতূহল নিয়ে উপভোগ করেন।

চাঁদের বিরল এই মুহূর্ত দেখতে ঢাকার পূর্বাচলে বাংলাদেশ অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি একটি শিবিরের আয়োজন করবে। এর সহযোগী মাসিক সাময়িকী বিজ্ঞানচিন্তা ও বাংলাদেশ বিজ্ঞান জনপ্রিয়করণ সমিতি। বিকেল পাঁচটা থেকেই পূর্বাচলের স্বর্ণালি আবাসিক এলাকার ল্যাবএইড প্রজেক্ট মাঠে শিবির করা হবে। শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত টেলিস্কোপে ও দূরবীক্ষণ যন্ত্র দিয়ে চন্দ্রগ্রহণ দেখার সুযোগ থাকবে।

এ ছাড়া জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরের উদ্যোগে আগারগাঁওয়ের জাদুঘরে ও পটুয়াখালীর কুয়াকাটা সমুদ্রসৈকত থেকে পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ দেখাতে পৃথক শিবির করা হবে। যে কেউ তাতে অংশ নিতে পারবেন।

আরও পড়ুনঃ   বিনা খরচে বাতি জ্বালান বছরের পর বছর

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

17 − five =