বাংলাদেশ সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই) এবং গালফ কোঅপারেশন কাউন্সিলের (জিসিসি) অন্যান্য দেশে শুল্কমুক্ত-কোটামুক্ত বাজার সুবিধা চেয়েছে।
আবুধাবীতে ৫ ও ৬ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ ও ইউএই’র ৪র্থ জয়েন্ট কমিশন বৈঠকে এ অনুরোধ জানানো হয়। এতে বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেন অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান এবং ইউএই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্বে ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী ড. আনোয়ার গারগেশ।
অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) একজন কর্মকর্তা বাসসকে বলেন, বাংলাদেশ বর্তমানে ইইউ ও অস্ট্রেলিয়াসহ ৩৮ দেশে শুল্ক ও কোটামুক্ত বাজার সুবিধা পাচ্ছে। এ প্রেক্ষিতে ইউএই’র কাছে এই সুবিধার অনুরোধ জানানো হয়। এর জবাবে ইউএই জিসিসি সচিবালয়ে বাংলাদেশকে এ সম্পর্কিত প্রস্তাব পাঠাতে বলেছে।
বৈঠকে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারক বাস্তবায়ন, দু’দেশের মধ্যে বাণিজ্য সম্প্রসারণে বাণিজ্য প্রতিনিধি বিনিময়ের ব্যবস্থা করতে যৌথ বাণিজ্য কাউন্সিল গঠনে ঐকমত্য হয়।
এ প্রসঙ্গে অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান বাসসকে বলেন, বৈঠকে উভয় দেশ যেকোন ধরনের প্রতিবন্ধকতা নিরসন করে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্য বৃদ্ধিতে একমত হয়েছে। তিনি আশা পোষণ করেন যে ইউএই বাজারে বাংলাদেশের শুল্ক ও কোটামুক্ত সুবিধার প্রস্তাবে ইউএই সমর্থন জানাবে।
বৈঠকে উভয় পক্ষ আইসিটিকে অগ্রাধিকার খাত হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   বছরে ৯০০০ কোটি টাকার স্বর্ণের ব্যবসা সরকারের নিয়ন্ত্রণ নেই

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

sixteen − thirteen =