অবিশ্বাস্য ঠাণ্ডা আর সূর্যের আলো সবচেয়ে কম দেখার জন্য রাশিয়ায় রেকর্ড করেছে বিদায়ী বছরের ডিসেম্বর মাসটি।

মাসটিকে বলা হচ্ছে ডার্কেস্ট বা সবচেয়ে অন্ধকার হিসেবে, আর এর বাইরে ছিলো না রাজধানী মস্কোও।

রাশিয়ার আবহাওয়াবিদরা বলছেন, ডিসেম্বরেই ইতিহাসের সবচেয়ে কম সূর্যের আলো দেখেছে মস্কো।

দেশটির প্রধান আবহাওয়া কেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী, এ মাসে সূর্য মস্কোতে আলো দিয়েছে মাত্র ছয় মিনিট।

সাধারণত ডিসেম্বরে সূর্যের আলো কমই দেখা যায় মস্কোতে। কিন্তু তাই বলে সেটিও অন্তত কয়েক ডজন ঘন্টা দেখা যেতো সবমিলিয়ে।

এবার রাশিয়ায় ঠাণ্ডাও পড়েছে ভয়াবহ মাত্রায়। পূর্বাঞ্চলের ইয়াকুতিয়া শহর সবচেয়ে বেশি ঠাণ্ডার রেকর্ড করেছে- তাপমাত্রা ছিলো মাইনাস ৬০ ডিগ্রিরও কম।

মস্কো থেকে প্রায় পাঁচ হাজার কিলোমিটার পূর্ব দিকের এই অঞ্চলটিতে অবশ্য এমনিতেই ঠাণ্ডার প্রকোপ বেশি হয়।

কিন্তু তারপরেও এবারের তাপমাত্রাকে অস্বাভাবিক বলছেন আবহাওয়াবিদরা।

গত সপ্তাহেও রাশিয়ার এ অঞ্চলের বিস্তীর্ণ এলাকায় তাপমাত্রা ছিলো মাইনাস ৫০ ডিগ্রির মতো।

শীতের সময়ে সাধারণত এ অঞ্চলের অধিবাসীরা ঘর থেকে বের হন না। স্কুলও বন্ধ রাখা হয়।

সাধারণত সতর্কতার অংশ হিসেবে এমন ঠাণ্ডায় মদ্যপান থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেয়া হয়। কারণ মদ্যপানজনিত কারণে শরীরের তাপমাত্রা আরও কমে যাওয়ার শঙ্কা থাকে।

শরীরে রক্ত সঞ্চালন ঠিক রাখতে গরম বা ঢিলেঢালা কাপড় পরেন তারা।

কর্তৃপক্ষের তরফ থেকে দেয়া হয় নানা সতর্কতা। যেমন ধরুন- বাতাস এড়িয়ে চলুন, বাচ্চাদের কিছুক্ষণ পরপর উষ্ণ স্থানে আনা।

এর আগে মস্কোর সবচেয়ে অন্ধকার মাসের রেকর্ড গড়েছিলো ২০০০ সালের ডিসেম্বর। সেবার পুরো মাসে সূর্য দেখা গিয়েছিলো মাত্র তিন ঘণ্টা।

সূত্র: বিবিসি

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   মুয়াজ্জিনের বাগান

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

one × 3 =