ইরানের সর্বোচ্চ নেতা আয়াতুল্লাহ আলি খামেনিকে মধ্যপ্রাচ্যের ‘নতুন হিটলার’ বলে অভিহিত করেছেন সৌদি যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান। মধ্যপ্রাচ্যে প্রভাব বিস্তারকে কেন্দ্র করে সৌদি আরব ও ইরানের মধ্যে যখন তিক্ততা ও উত্তেজনা ক্রমশই বাড়ছে তখন সৌদি আরবের ডিফ্যাক্টো নেতা এই মন্তব্য করলেন।

নিউইয়র্ক টাইমস সংবাদপত্রকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে ইরানের সর্বোচ্চ নেতা সম্পর্কে এই মন্তব্য করে যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমান তিনি বলেন, ইউরোপ থেকে আমরা শিখেছি যে মিমাংসার নীতি কাজ করে না। ইউরোপে যা ঘটে গেছে, মধ্যপ্রাচ্যে যাতে তার পুনরাবৃত্তি না ঘটে সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

ইরানকে প্রশমিত করা যাবে না বলে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন, তাকে (খামেনি) গৃহবন্দি করে রাখা উচিত।

রিয়াদ ও তেহরানের মধ্যে উত্তেজনা কতো গভীরে গেছে যুবরাজ সালমানের এই বক্তব্য থেকে তার কিছুটা ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে। প্রতিনিয়ত দুই দেশের পক্ষ থেকেই একে অপরের বিরুদ্ধে মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতা সৃষ্টির অভিযোগ আনা হচ্ছে। নতুন করে সৌদি যুবরাজের এই মন্তব্য দুই দেশের মধ্যে বাকযুদ্ধ ও উত্তেজনা আরও বাড়াবে বলে মনে করছেন বিশ্লেষকেরা। তবে যুবরাজ সালমানের মন্তব্যের বিষয়ে এখনো কোন পাল্টা মন্তব্য করেনি ইরান।

মার্কিন পত্রিকাকে দেওয়া ওই সাক্ষাৎকারে সৌদি যুবরাজ তার দেশে বর্তমানে দুর্নীতির বিরুদ্ধে যে অভিযান চলছে, সে বিষয়েও কথা বলেন।

তার বিরোধীদের ওপর এই অভিযান চালিয়ে তিনি তার ক্ষমতাকে আরও কুক্ষিগত করার চেষ্টা করছেন- এ ধরনের অভিযোগকে তিনি হাস্যকর বলে উড়িয়ে দিয়ে বলেন, যাদের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে তাদেরকে রাষ্ট্রের পাওনা প্রায় ১০ হাজার কোটি ডলার ফিরিয়ে দিতে হবে।

এ ছাড়া ওই সাক্ষাৎকারে যুবরাজ সৌদির ধর্মীয় আচার ও রীতিনীতি সংস্কারের মাধ্যমে উদার ইসলামকে ফিরিয়ে আনতে কাজ করছেন বলেও মন্তব্য করেন। তিনি বলেন, নবী মোহাম্মদ যে ইসলামের কথা বলে গেছেন সেই ইসলাম তিনি ফিরিয়ে আনতে চান।

আরও পড়ুনঃ   অস্ট্রিয়ায় বোরকা পরলেই গুনতে হবে জরিমানা

আবু আজাদ

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

2 × one =