কারিগরি শিক্ষাই হবে দেশের উন্নয়নের অন্যতম হাতিয়ার। বিশাল জনসংখ্যার এ দেশকে এগিয়ে নিতে হলে সবাইকে প্রযুক্তি দক্ষতা অর্জন করতে হবে।
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ রোববার দেশের কারিগরি শিক্ষার্থীদের উদ্ভাবিত বিভিন্ন উদ্ভাবনী প্রকল্প নিয়ে অনুষ্ঠিত ‘স্কিলস কম্পিটিশন ২০১৭’এর চূড়ান্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
ঢাকা মহিলা পলিটেকনিক ইনষ্টিটিউটের উদ্যোগে কারিগরি এবং মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের সচিব মো: আলমগীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মুখ্য সমন্বয়ক (এসডিজি) মো: আবুল কালাম আজাদ, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো: সোহরাব হোসাইন ও বিশ্বব্যাংকের সিনিয়র অপারেসন্স অফিসার ড. মো: মোখলেছুর রহমান।
তিনি বলেন, পৃথিবীতে যে জাতি কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষায় যত বেশী উন্নত অর্থনৈতিকভাবেও সে জাতি তত বেশি এগিয়ে রয়েছে। তাই বর্তমান সরকার কারিগরি ও বৃত্তিমূলক শিক্ষার উন্নয়নে অধিক গুগুত্ব দিয়েছে।
শিক্ষামন্ত্রী বলেন, শিক্ষা হওয়া উচিৎ দক্ষতানির্ভর। দক্ষতানির্ভর কারিগরি শিক্ষাই কেবল পারে দেশকে দারিদ্র্যের দুষ্টচক্র থেকে মুক্ত করে সরকারের নির্ধারিত সময়ে মধ্যম ও উচ্চ আয়ের দেশে রূপান্তর করতে। এ লক্ষ্যে বর্তমান সরকার কাজ করে যাচ্ছে এবং কারিগরি শিক্ষাকে আধুনিকায়নের কর্মসূচি হাতে নিয়েছে।
শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের অধীন কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরের আওতায় বাস্তবায়নাধীন ‘স্কিলস অ্যান্ড ট্রেনিং এনহ্যান্সমেন্ট প্রজেক্ট (স্টেপ) ২০১৪ সাল থেকে ডিপ্লোমা-ইন-ইঞ্জিনিয়ারিং এর শিক্ষার্থীদের মেধা ও উদ্ভাবনী শক্তির বিকাশের লক্ষ্যে এই প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে। এর উদ্দেশ্য হচ্ছে কারিগরি শিক্ষার্থীদের সৃজনশীলতা বিকাশের পথ প্রশস্তকরা, শিল্প-সংযোগ প্রতিষ্ঠা করা এবং কলকারখানাগুলো উদ্ভাবনী প্রক্রিয়ায় সম্পৃক্ত করার মধ্য দিয়ে দেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রযাত্রায় ইতিবাচক ভূমিকা রাখা।
এরআগে সকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্র থেকে একটি র‌্যালি শুরু হয়ে ঢাকা মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটে এসে শেষ হয়।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   এবার মমতাজের কী হবে?

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

10 + 13 =