সাবেক অধিনায়ক অ্যালিষ্টার কুকের ক্যারিয়ারের পঞ্চম ডাবল-সেঞ্চুরিতে বক্সিং-ডে টেস্টে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম ইনিংসে লিড পেয়েছ সফরকারী ইংল্যান্ড। কুকের অপরাজিত ২৪৪ রানের সুবাদে তৃতীয় দিন শেষে ৯ উইকেটে ৪৯১ রান করে ইংলিশরা। ১ উইকেট হাতে নিয়ে ১৬৪ রানে এগিয়ে ইংল্যান্ড।
১৫১ ম্যাচের টেস্ট ক্যারিয়ারে কুকের ৩২তম সেঞ্চুরিতে ২ উইকেটে ১৯২ রান তুলে দ্বিতীয় দিনের খেলা শেষ করেছিলো ইংল্যান্ড। কুকের ১০৪ রানের সাথে অন্যপ্রান্তে ৪৯ রানে অপরাজিত ছিলেন অধিনায়ক জো রুট।
ইংলিশ অধিনায়ক রুট ৬১ রানে ফিরে গেলেও দলের হাল শক্ত হাতে টেনেছেন কুক। এতে প্রথম ইনিংসে অস্ট্রেলিয়ার করা ৩২৭ রান সহজেই পেরিয়ে যায় ইংল্যান্ড। দেশের হয়ে টেস্টে সর্বোচ্চ ১১বার দেড়শ রানের কোটা পেরিয়ে যাওয়ার রেকর্ডও গড়েন কুক। পরবর্তীতে ক্যারিয়ারের পঞ্চম ডাবল-সেঞ্চুরিও তুলে নেন তিনি।
সিরিজের প্রথম তিন ম্যাচে রান খড়ায় ভুগছিলেন কুক। তিন ম্যাচের ছয় ইনিংসে তার রান ছিলো যথাক্রমে ২,৭, ৩৭,১৬, ৭ ও ১৪। ৩৬০তম বলে ডাবল-সেঞ্চুরির তুলে নিয়ে এক প্রান্ত আগলে ধরে রেখেছিলেন তিনি। অন্যপ্রান্ত দিয়ে কুককে বলার মত সঙ্গ দিতে পারেননি স্বীকৃত ব্যাটসম্যানরা। শেষ পর্যন্ত কুককে যোগ্য সঙ্গ দেন দশ নম্বরে নামা পেসার স্টুয়ার্ট ব্রড। তাকে নিয়ে নবম উইকেটে ১০০ রান যোগ করেন কুক। ব্রডের বিদায়ের ভেঙ্গে যায় এই জুটি। ৬৩ বলে ৫৬ রান করেন তিনি।
এরপর কুকের সাথে দুর্দান্ত ব্যাট করে দিনের শেষ ৩৭ বল বিপদ ছাড়াই পার করে দেন শেষ ব্যাটসম্যান জেমস এন্ডারসন। ফলে দিনের শেষ ভাগে অলআউটের সম্ভাবনা জাগলেও তা ঘটেনি। ১৫ বল মোকাবেলা করে শূন্য রানে অপরাজিত আছেন এন্ডারসন।
২৭টি চারে ৪০৯ বল মোকাবেলা করে ২৪৪ রানে অপরাজিত আছেন কুক। এছাড়া রুটের পর মিডল ও লোয়ার-অর্ডারে ডেভিড মালান ১৪, উইকেটরক্ষক জনি বেয়ারস্টো ২২, মঈন আলী ২০, ক্রিস ওকস ২৬ ও টম কারান ৪ রান করে ফিরেন। অস্ট্রেলিয়ার ৩টি করে উইকেট নেন জশ হ্যাজেলউড, নাথান লিঁও ও প্যাট কামিন্স।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
অস্ট্রেলিয়ার : ৩২৭/১০, ১১৯ ওভার (ওয়ার্নার ১০৩, স্মিথ ৭৬, ব্রড ৪/৫১)।
ইংল্যান্ড : ৪৯১/৯, ১৪৪ ওভার (কুক ২৪৪*, রুট ৬১, হ্যাজেলউড ৩/৯৫)।

আরও পড়ুনঃ   আমাদের ভাবনায় এখন শুধুই এল ক্লাসিকো

(বাসস/এএফপি)

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

7 + 3 =