তোফায়েল আহমেদ

ক্ষমতা থাকলে সরকারকে টেনে-হিঁচড়ে নামান: তোফায়েল

 বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদের বক্তব্যের সমালোচনা করে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেছেন, ‘ক্ষমতা থাকলে আপনারা সরকারকে টেনে-হিঁচড়ে নামান।’

রাজধানীর একটি অনুষ্ঠানে ২১ নভেম্বর সোমবার মওদুদ আহমদ বলেন, আগামী নির্বাচন বিষয়ে সরকারকে সমঝোতায় আসতে হবে, না হলে সরকারকে অসম্মানজনকভাবে বিদায় নিতে হবে। তার এ বক্তব্যের প্রেক্ষিতে ২২ নভেম্বর বুধবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে আয়োজিত এক সেমিনারে এ কথা বলেন বাণিজ্যমন্ত্রী।

বঙ্গবন্ধু’র ৭ মার্চের ভাষণ ইউনেস্কোর স্বীকৃতি পাওয়া উপলক্ষে ‘৭ মার্চের মহাকাব্য-বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের ইতিহাস’ শীর্ষক সেমিনারটির আয়োজন করে সেক্টর কমান্ডার্স ফোরোম।

সেমিনারে বিএনপির সমালোচনা করে তোফায়েল আহমেদ বলেন, ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বানচাল এবং ২০১৫ সালে সরকার পতনের জন্য আন্দোলনের নামে কোনো কিছু করতে বাদ রাখেনি। বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়া সরকারের পতন না ঘটিয়ে ঘরে ফিরে যাবেন না বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু তিনি আদালতে হাজিরা দিয়ে ঘরে ফিরে আসতে বাধ্য হয়েছিলেন।

তিনি আরও বলেন, জামায়াতকে নিয়ে ক্ষমতায় গিয়ে ২০০১ সালের মতো দেশে আবার ধ্বংসযজ্ঞ চালানোর সুযোগ এ দেশের মানুষ আপনাদের আর দেবে না।

আগামী নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সংবিধান অনুযায়ী নির্বাচন কমিশন নির্বাচন পরিচালনা করবে এবং ক্ষমতাসীন সরকার হিসেবে বর্তমান সরকার নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করবে। বিশ্বের অন্যান্য সংসদীয় গণতান্ত্রিক দেশের মতো বাংলাদেশেও বর্তমান সরকার নির্বাচনকালীন সরকারের দায়িত্ব পালন করবে।

বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণের কথা উল্লেখ করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ অর্থনৈতিক মুক্তির পথে এগিয়ে যাচ্ছে। ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে তিনি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা প্রতিষ্ঠা করেছেন। ২০০৮ সালে ক্ষমতায় এসে তিনি বঙ্গবন্ধুর খুনী ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করেছেন। বর্তমান মেয়াদে তিনি দেশকে অর্থনৈতিক মুক্তির দিকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।

রোহিঙ্গা সংকটের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, মিয়ানমারকে একদিন রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতেই হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কূটনৈতিক সফলতার জন্যই রোহিঙ্গা সংকট আন্তর্জাতিক ইস্যুতে পরিণত হয়েছে। আর সেজন্যই বিশ্ববাসী বঙ্গবন্ধু কন্যাকে মাদার অব হিউমিনিটি উপাধিতে ভূষিত করেছে।

সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের সহ-সভাপতি ও পুলিশের সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিদর্শক নূরে আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সেমিনারে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের চেয়ারম্যান কাজী রিয়াজুল হক, পল্লী কর্ম- সহায়ক ফাউন্ডেশন(পিকেএসএফ)’র চেয়ারম্যান ড. কাজী খলিকুজ্জামান, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের সহ-সভাপতি স্থপতি মোবাশ্বের হোসেন, জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহাম্মদ শফিকুর রহমান, সেক্টর কমান্ডার্স ফোরামের যুগ্ম-মহাসচিব অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ, ফারজানা শাহনাজ মুনির ও স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শিল্পী বুলবুল মহলানবিশ।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিশিষ্ট সাংবাদিক ও সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ একাত্তরের মহাসচিব হারুন হাবিব।

শেখ নোমান

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

17 − 1 =