জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজাপ্রাপ্ত বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এখন রাজধানীর নাজিমুদ্দিন রোডের সাবেক ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে আছেন। তাঁর সঙ্গে দেখা করার জন্য কারাগারে গেছেন পাঁচজন আইনজীবী। এঁরা হলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ ও জমির উদ্দিন সরকার, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান খন্দকার মাহবুব হোসেন, ট্রাস্ট মামলায় খালেদার আইনজীবী আবদুর রেজাক খান, সাবেক অ্যাটর্নি জেনারেল এ জে মোহাম্মদ আলী।

আজ শনিবার বেলা পৌনে তিনটার দিক থেকে তাঁরা কারাগারের সামনে আসনে। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাঁরা ভেতরে ঢোকার অনুমতি পান।

সে সময় সাংবাদিকদের মওদুদ আহমদ বলেন, আইন অনুযায়ী ১৮ ক্যাটাগরির বন্দী ডিভিশন পান। এটা অত্যন্ত দুঃখজনক যে বিএনপির চেয়ারপারসনকে ডিভিশন দেওয়া হয়নি। ডিভিশনের জন্য আবেদন নিবেদনের প্রয়োজন হয় না। তাঁকে একটি পরিত্যক্ত নির্জন কারাগারে রাখা হয়েছে। ফাঁসির আসামিদের যেভাবে রাখা হয়েছে, সেভাবে তাঁকে রাখা হয়েছে।

মওদুদ আহমদ বলেন, যত দ্রুত কাগজপত্র পাওয়া যাবে, তত দ্রুত তাঁরা আবেদন করবেন।

এর আগে দুপুর দুইটার দিকে বিএনপিপন্থী ৪ আইনজীবী খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও ডিভিশন ব্যবস্থার জন্য একটি আবেদন নিয়ে আসেন। তারা পুলিশকে তা গ্রহণ করার জন্য অনুরোধ করেন।

কর্তব্যরত পুলিশের জ্যেষ্ঠ সহকারী কমিশনার বজলুর রশীদ বলেন, জেল সুপারের সঙ্গে ফোনে যোগাযোগ করে আবেদন দিতে হবে। তা কারা অধিদপ্তরে জমা দিতে হবে।

এ কথা শোনার পর আইনজীবীরা তাঁদের আবেদন কারা অধিদপ্তরে জমা দিতে যান। আইনজীবীদের মধ্যে ছিলেন মাহমুদ হাসান, এহসানুর রহমান, তাহেরুল ইসলাম, এস এম জুলফিকার আলী।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   বিএনপির বিজয় র‌্যালিতে মানুষের ঢল, নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিন : মির্জা ফখরুল

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

14 − nine =