বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে অন্যায়ভাবে কোনো রায় দেয়া হলে সরকার পতন আন্দোলন শুরু হবে বলে হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

তিনি বলেন, বেগম জিয়াকে অন্যায়ভাবে সাজা দেয়া হলে এরপর যে আন্দোলন হবে, সেটা হবে সরকার পতনের আন্দোলন এবং কারো মুক্তির দাবি আমরা করবো না। সরকারের পতন করে এদেশে নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে সেই নির্বাচনে বেগম খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে আমরা নির্বাচনে যাব। এমনকি বেগম খালেদা কারান্তরীণ হলে বিএনপির সিনিয়র নেতারা স্বেচ্ছায় জেলে যেতে রাজি আছেন বলে মন্তব্য করেন ড. খন্দকার মোশাররফ।

আজ রোববার দুপুরে সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) ভবনের স্বাধীনতা হলে এক আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল কাদির ভূইয়া জুয়েল ও সাংগঠনিক সম্পাদক ইয়াসীন আলীসহ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। সংগঠনের ঢাকা মহানগর উত্তর শাখা এই সভার আয়োজন করে। সংগঠনের সভাপতি ফখরুল ইসলাম রবিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন- উত্তরের সাধারণ সম্পাদক গাজী রেজওয়ান উল হোসেন রিয়াজ।

ড. খন্দকার মোশাররফ বলেন, আমরা পরিষ্কারভাবে বলে দিতে চাই, বেগম খালেদা জিয়াকে যদি অন্যায়ভাবে কোনো রায়ের মাধ্যমে জেলের অভ্যন্তরে নেয়া তাহলে বিএনপি সিনিয়র নেতারাও স্বেচ্ছায় কারাবরণ করতে রাজি আছে।

তিনি বলেন, এ মামলায় বেগম খালেদা জিয়ার কোনো সম্পৃক্ততা নেই। কোনো ডকুমেন্ট নেই। কোনো স্বাক্ষী বলতে পারেনি। সিনিয়র আইনজীবীরা বক্তব্য দেওয়ার জন্য সময় চেয়েছিলেন। কিন্তু তড়িঘড়ি করে ৮ ফেব্রুয়ারি রায়ের জন্য দিন ঠিক করা হয়েছে। আমরা বলতে চাই, যদি সাক্ষ্য-প্রমাণের ভিত্তিতে সুবিচার হয় তাহলে বেগম খালেদা জিয়া বেকসুর খালাস পাবেন।

সাবেক এই মন্ত্রী বলেন, আগামী একাদশ নির্বাচনকে সামানে রেখে ষড়যন্ত্র হচ্ছে। খালেদা জিয়া ও বিএনপি ছাড়া এদেশে নির্বাচন হবে না, হতে দেওয়া হবে না। তাই আপনারা যে বৃথা চেষ্টা করছেন, এটা বারবার দেশের মানুষ মেনে নিবে না। ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে বলেছিলেন এটা নিয়ম রক্ষার নির্বাচন। এটা সংবিধান রক্ষার নির্বাচন। আমরা বলে দিয়েছি যদি সকল দলের অংশগ্রহণের নির্বাচন হতে হয় তাহলে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে হতে হবে। এতে আপনারা ভয় পাচ্ছেন। গোয়েন্দা রিপোর্ট দেখে। কারণ খালেদা জিয়া ও আমাদেরকে যদি বাইরে রেখে নির্বাচন করেন তাহলে আপনাদের ভরাডুবি হবে। আজকে যা করছেন এই ষড়যন্ত্রও এদেশের মানুষ মোকাবিলা করবে।

আরও পড়ুনঃ   নির্বাচন থেকে খালেদাকে দূরে রাখতেই এ রায় : মীর্জা ফখরুল

আগামী দিনে আন্দোলন-সংগ্রামের জন্য দলের নেতা-কর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান বিএনপির এই সিনিয়র নেতা।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

twelve − seven =