উঁচু লাল দেয়ালঘেরা কারাগারটির সামনে বিশাল ফটক। মূল সেই ফটক দিয়ে ঢোকার পর পার হতে হয় আরও একটি তোরণ। এই পরিসরের মধ্যেই ছিল ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডে কারাগারের প্রশাসনিক ভবন। ভবনটি আগে সরগরম ছিল কারাগার প্রশাসকদের কর্মচঞ্চলতায়। পরিত্যক্ত কারাগারের নির্জন এই ভবনে আজ ঠাঁই হলো বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার।

 ঢাকার এই পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারের সব বন্দীকে ২০১৬ সালের ২৯ জুলাই কেরানীগঞ্জের নতুন কারাগারে নেওয়া হয়। তারপর থেকে সাত হাজার বন্দী ধারণক্ষমতার কারাগারটি ফাঁকা ছিল। সরকার ১৭ একরের এই জায়গায় জাদুঘর, বিনোদনকেন্দ্র ও উন্মুক্ত স্থান করার উদ্যোগ নেয়। খালেদা জিয়াকে সেখানে অন্তরীণ রাখায় পরিত্যক্ত কারাগারটি আবার সচল হলো। খালেদা জিয়া এই কারাগারের একমাত্র বন্দী।

 জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় সাজা হলে খালেদা জিয়াকে কোথায় রাখা হবে, তা নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরেই প্রস্তুতি চলছিল। প্রথমে ভাবা হয়েছিল, তাঁকে কাশিমপুরে কেন্দ্রীয় নারী কারাগারে (কাশিমপুর-৩) রাখা হবে। তবে কাশিমপুর থেকে ঢাকার আদালতে আনা-নেওয়া বেশ ঝুঁকিপূর্ণ। এরপর ভাবা হয় নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারের কথা।

নাজিমুদ্দিন রোডে রাখার সিদ্ধান্ত হওয়ার পরই শুরু হয় ঘরগুলো ধোয়ামোছার কাজ। প্রধান ফটকের পর কারাগারের তত্ত্বাবধায়ক যে কক্ষটিতেই বসতেন, সেই ঘরটিতেই খালেদা জিয়ার থাকার ব্যবস্থা করা হয়। বাথরুমসহ বড় কক্ষে তাঁর থাকার জন্য খাট ও অন্যান্য জিনিসপত্র এক দিন আগেই আনা হয়েছে। ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দী হিসেবে খালেদা জিয়া এসব সুবিধা পাবেন।

 কারা প্রশাসনের ঢাকা বিভাগের উপমহাপরিদর্শক তৌহিদুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, জেলকোড অনুসারে প্রথম শ্রেণির বন্দীর সব সুবিধা তাঁকে দেওয়া হচ্ছে।

 সূত্র জানায়, কারাগারে প্রথম শ্রেণির বন্দী যেসব সুবিধা পান, তার মধ্যে রয়েছে খাটসহ বিছানা, মশারি, চেয়ার-টেবিল, একটি দৈনিক পত্রিকা ও একজন কাজের মানুষ। এর পাশাপাশি জেলকোড অনুসারে তিনি খাবার পাবেন। সঙ্গে একজন গৃহকর্মী নেওয়ার আবেদন করেছেন খালেদার আইনজীবী। তবে কারাগার এখনো সে আদেশ পায়নি। খালেদা জিয়ার একজন আইনজীবী বলেছেন, একজন গৃহকর্মী খালেদার সঙ্গে আছেন।

আরও পড়ুনঃ   বিএনপির নয়াপল্টন অফিস ঘিরে রেখেছে পুলিশ

বেলা দুইটার দিকে খালেদাকে কারাগারে নেওয়া হয়। সেখানে আসার পর খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্য পরীক্ষা করেন একজন নারী চিকিৎসক। জেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, খালেদা জিয়ার প্রেশার ঠিক আছে। তাঁর স্বাস্থ্যগত কোনো বড় সমস্যা নেই। তিনি স্বাভাবিক খাওয়াদাওয়া করছেন।

 কারা সূত্র জানায়, এই কারাগারে দুজন ডেপুটি জেলার থাকবেন। একজন নারী ডেপুটি জেলার কারাগারের ভেতরে, আরেকজন পুরুষ ডেপুটি জেলার বাইরে থাকবেন। সার্বক্ষণিক একজন চিকিৎসকও থাকবেন। কারাগারের ভেতরে দায়িত্ব পালনের জন্য কয়েকজন দক্ষ ও পুরোনো কারারক্ষীকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। খালেদাকে কারাগারে নেওয়ার আগেই গতকাল সকালে তাঁদের সেখানে এনে রাখা হয়। বাসা থেকে আদালতে আসার সময় নিজের জিনিসপত্র ছোট ছোট সাতটি ব্যাগে ভরে সঙ্গে নিয়েছিলেন খালেদা। এসব তাঁর সঙ্গে দেওয়া হয়।

রায় ঘোষণার আগে সকাল থেকেই কারাগারের আশপাশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। চারপাশের সব সড়ক বন্ধ করে দেয় পুলিশ। প্রধান ফটকের সামনেও কাউকে ঘেঁষতে দেওয়া হয়নি।

 ৩৬ বছরের রাজনৈতিক জীবনে খালেদা জিয়ার এটি দ্বিতীয় কারাবাস। এর আগে ২০০৭ সালের ৩ সেপ্টেম্বর বিগত তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় তিনি গ্রেপ্তার হন। তাঁকে সংসদ ভবন এলাকায় স্থাপন করা বিশেষ কারাগারে রাখা হয়। ২০০৮ সালের ১১ সেপ্টেম্বর হাইকোর্টের আদেশে তিনি মুক্তি পান। এর আগে এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময় ১৯৮৩ সালের ২৮ নভেম্বর, ১৯৮৪ সালের ৩ মে, ১৯৮৭ সালের ১১ নভেম্বর আটক হন তিনি। এর মধ্যে প্রথম দুবার ঘটনাস্থল থেকে আটক করে তাঁকে বাসায় পৌঁছে দেয় পুলিশ। ১৯৮৭ সালে হোটেল পূর্বাণীতে এক অনুষ্ঠান থেকে আটক করে আরও কয়েকজন নেতার সঙ্গে তাঁকে কিছু সময়ের জন্য মতিঝিল থানায় নেওয়া হয়। এরশাদবিরোধী আন্দোলনের সময় ‘অঘোষিত’ভাবে তাঁকে গৃহবন্দী থাকতে হয়েছে। তবে এটা আইনানুগ ছিল না। বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সময় ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর গুলশানের বাসায় অবরুদ্ধ করা হয় তাঁকে। আর ২০১৫ সালের ৫ জানুয়ারি তাঁর গুলশানের কার্যালয়ের দুই পাশে বালুর ট্রাক রেখে অবরুদ্ধ করা হয়। ৯৩ দিন সেখানে অবরুদ্ধ ছিলেন।

আরও পড়ুনঃ   বিএনপির নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে তিন মামলা

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

twenty + four =