টেকনাফ প্রতিনিধি: রোহিঙ্গা ইস্যুতে নিরাপত্তা পরিষদে ‘রাশিয়া ও চীন যাতে ভোটো’ ক্ষমতা প্রয়োগ করতে না পারে সেজন্য সরকারকে কূটনীতিক তৎপরতা জোরদার করার আহ্বান জানিয়েছে বিএনপি।

দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, রোহিঙ্গা ইস্যুতে কূটনীতিক প্রক্রিয়া জোরদার করতে হবে। যাতে কোনোভাবেই চীন-রাশিয়া তাদের ভোটো ক্ষমতা প্রয়োগ করতে না পারে  সে ব্যাপারে সোচ্চার পদক্ষেপ নিতে হবে।

বুধবার দুপুরে কক্সবাজারের উখিয়ায় রোহিঙ্গাদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। তিনি আরও বলেন, রোহিঙ্গারা যারা এসেছে তাদের এখানে স্থায়ীভাবে বসবাস নয়, মানবিক কারণে তাদের সাময়িকভাবে আশ্রয় দিতে হবে।

মির্জা ফখরুল বলেন, অবিলম্বে রোহিঙ্গারা যাতে নিজ দেশে ফিরে গিয়ে নাগরিকত্ব পায় সে ব্যবস্থা অবশ্যই সরকারকে নিতে হবে। অসহায় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোর জন্য তিনি খালেদা জিয়ার পক্ষ থেকে সবার প্রতি আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, সেনাবাহিনীকে সম্পৃক্ত করার জন্য আমরা প্রথম থেকে দাবি করেছি। সেনাবাহিনী দায়িত্ব গ্রহণের পর শরণার্থী শিবিরে শৃঙ্খলা ফিরে এসেছে। এই কর্মকাণ্ডে জনবল বাড়াতে হবে, স্বাস্থ্যসেবা বৃদ্ধি করতে হবে এবং রোহিঙ্গাদের আশ্রয়ের জন্য অস্থায়ী ঘরবাড়ি তৈরি করতে হবে।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণ করতে মঙ্গলবার বিকেলে বিমানযোগে কক্সবাজার পৌঁছান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

 বুধবার সকালে উখিয়া কলেজ মাঠে সেনাবাহিনীর ত্রাণভাণ্ডারে দুই ট্রাক ত্রাণসামগ্রী হস্তান্তর করেন তিনি। ক্যাম্পের কর্মকর্তা মেজর রফিক এসব ত্রাণসামগ্রী গ্রহণ করেন। বিএনপি মহাসচিব ডক্টর অ্যাসোসিয়েশনের ফ্রি মেডিকেল স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রও পরিদর্শন করেন।

এ সময় অন্যদের মধ্যে ছিলেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান এজেডএম জাহিদ হোসেন, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা কাউন্সিলের সদস্য আবদুস সালাম, কেন্দ্রীয় নেতা মজিবুর রহমান সারোয়ার, ফজলুল হক মিলন, শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, কামরুজ্জামান রতন, লুৎফর রহমান কাজল, মাহবুবুর রহমান শামীম, শরীফুল আলম, শহীদুল ইসলাম বাবুল, আমিরুজ্জামান খান শিমুল, শায়রুল কবির খান, উখিয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সারোয়ার জাহান চৌধুরী, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি রাশেদুল হক রাসেলসহ অঙ্গসংগঠন ও জেলা নেতৃবৃন্দ।

অন্যদিকে বিকেলে বিএনপি মহাসচিব উখিয়ার বাগগুনা, বালুখালী ও থাইমখালী রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন। ত্রাণসামগ্রীর মধ্যে ত্রিপল, জামা-কাপড়, হাঁড়ি-পাতিল, খাদ্যসামগ্রী, ওষুধ, টিউবওয়েল প্রভৃতি রয়েছে। সন্ধ্যায় কক্সবাজার জেলা নেতা-কর্মীদের এক সম্মেলনে তিনি বক্তব্য রাখেন।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

fourteen + 14 =