ফ্রান্স: রাজধানী প্যারিসের একটি শহরতলীর রাস্তায় প্রকাশ্যে শুক্রবার জুমার নামাজ আদায় করেছেন প্রায় দুই শতাধিক মুসলিম। এই ঘটনা প্রতিবাদে প্রায় ১০০ রাজনীতিক সেখানে মিছিল নিয়ে গিয়েছিলেন। আর প্যারিসের শহরতলী ক্লিচির মেয়র রেমি মুজোর নেতৃত্বে নামাজ আদায়কারীদের বাধা দেয়া হয়।

প্রতিবাদে অংশগ্রহণকারীদের বেশিরভাগই মধ্য-ডানপন্থি রিপাবলিকান ও ইউডিআই পার্টির নেতাকর্মী।উভয়পক্ষের মাঝে অবস্থান নিয়ে দুপক্ষকে বিচ্ছিন্ন করে রাখে পুলিশ, তারপরও কিছু মারামারির ঘটনা ঘটেছে বলে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। ফ্রান্সের কঠোর ধর্মনিরপেক্ষ ব্যবস্থায় সরকারি জায়গা ব্যবহার করে নামাজ আদায় অগ্রহণযোগ্য বলে মন্তব্য করেছেন সমালোচকরা।

অপরদিকে মুসুল্লিরা দাবি করেছেন, যে ঘরটিতে তারা নামাজ পড়তেন মার্চে টাউন হল কর্তৃপক্ষ তা নিয়ে নেওয়ার পর থেকে তাদের যাওয়ার আর কোনো জায়গা নেই। পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোর মধ্যে ফ্রান্সেই সবচেয়ে বেশি মুসলিম বসবাস করে। দেশটিতে মুসলিম জনগোষ্ঠীর সংখ্যা প্রায় ৫০ লাখ।

ধাক্কাধাক্কির মধ্যে ‘ইউনাইটেড ফর অ্যা গ্র্যান্ড মস্ক অব ক্লিশি’ নামের একটি ব্যানার ছিড়ে ফেলা হয়। পুলিশ বিক্ষোভকারী ও নামাজ আদায়ের উদ্দেশ্যে আসা মুসলিমদের মধ্যে মানবঢাল তৈরি করে। এরপরে মুসলিমরা নামাজের বিছানা বিছিয়ে ও নামাজ আদায় করে। নামাজ শেষ হওয়ার পরে মুসলিমরা হাততালি দিয়ে সেটা উদযাপন করে। আর মেয়র রেমি বলেছেন, তারা আগামী সপ্তাহেও আবার ফিরে আসবেন। তিনি বলেন, প্রয়োজন হলে প্রত্যেক শুক্রবারে আমরা ফিরে আসব। আমাকে শহরের নাগরিকদের শান্তি ও স্বাধীনতা নিশ্চিত করতে হবে। আমাদের দেশে এটা হতে দিতে পারি না। আমাদের ফরাসি রিপাবলিকের বদনাম হচ্ছে।

ক্লিচির মুসলিম অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট ও ইমাম হামিদ কাজেদ বলেন, আমরা নির্দিষ্ট নামাজ পড়ার জায়গার বিষয়ে আলোচনা শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত আমরা এটা অব্যাহত রাখব। সূত্র: অনলাইন

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

seven + twelve =