টেস্ট সিরিজে সাকিব আল হাসানকে ছাড়া ভুগেছে বাংলাদেশ। ঢাকা টেস্টে আড়াই দিনে হেরে সে ভোগান্তির ষোলোকলা পূর্ণ হয়েছে। কিন্তু সাকিবহীন ভোগান্তির হাত থেকে রেহাই মিলছে না টি-টোয়েন্টি সিরিজেও। সাকিব নিজেই জানিয়ে দিয়েছেন আঙুলের চোট থেকে সেরে উঠতে আরও সপ্তাহ দু-এক লেগে যেতে পারে তার। সে কারণেই টি-টোয়েন্টি সিরিজে খেলার প্রত্যাশা তিনি নিজেও আর করছেন না।

মজার ব্যাপার হচ্ছে, প্রথম টি-টোয়েন্টির জন্য বাংলাদেশের যে স্কোয়াড ঘোষিত হয়েছিল, সেটাতে রাখা হয়েছিল সাকিবকে। এ ব্যাপারে প্রধান নির্বাচক মিনহাজুল আবেদীনের মন্তব্য বেশ অবাক করছে সবাইকে। সাকিব যে টি-টোয়েন্টি সিরিজে খেলতে পারবেন না, সেটি নাকি তিনি আগে থেকেই জানতেন, ‘১৫ তারিখে সাকিব যে খেলতে পারবে না, সেটা তো জানতামই। প্রথম টি-টোয়েন্টিতে তাকে পাচ্ছি না। তবে পরেরটিতে প্ল্যান আছে তাকে নিয়ে।’

পরের টি-টোয়েন্টিতে সাকিবকে নিয়ে মিনহাজুলের ‘প্ল্যান’টাও বাস্তবায়িত হওয়ার কোনো সম্ভাবনাই নেই। আজ দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) এক অনুষ্ঠানে এসে সাকিব বলেছেন, ‘টি-টোয়েন্টি সিরিজে আসলে খেলার বোধ হয় সম্ভাবনা নেই। কারণ ডাক্তার বলেছে পুরো ক্ষত সারতে আরও দুই সপ্তাহ লাগবে। সে রকম হলে আসলে কীভাবে খেলব। আশা করি, দুই সপ্তাহের পুনর্বাসন-প্রক্রিয়া শেষ করে শ্রীলঙ্কায় নিধাস কাপে খেলতে পারব।’

সেরে উঠতে আরও দুই সপ্তাহ লেগে যাবে—এটি সাকিব নিজেই বললেন। কিন্তু প্রধান নির্বাচক জানিয়েছিলেন সাকিবের সেরে উঠতে লাগবে সাত দিন। তাঁর এ কথায় সমন্বয়হীনতাই কি ফুটে উঠছে না?

টি-টোয়েন্টিতে থাকতে না পেরে সাকিব নিজেও বেশ হতাশ। সবচেয়ে বেশি হতাশ দলের পারফরম্যান্সেই, ‘সবারই তো লক্ষ্য ছিল জেতার। কিন্তু ক্রিকেটে সবাই যেটা চায়, সব সময় সেটা হয় না, এটিই স্বাভাবিক। তবে আমি খুবই আশাবাদী যে টি-টোয়েন্টিতে আমরা ঘুরে দাঁড়াব এবং ভালো একটা রেজাল্ট করতে পারব।’

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   ফাঁস হয়ে গেছে ব্যালন ডি’অর জয়ীর নাম!

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

2 × 2 =