নারীকে তুলে নিয়ে বিয়ে করার অভিযোগ প্রমাণিত হলে মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (ক্রাইম অ্যান্ড অবস্) মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

আজ সোমবার রাজধানীর নাখালপাড়ায় হোসেন আলী স্কুলে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন।

মন্ত্রী বলেন, ইতোমধ্যে ডিআইজি মিজানুর রহমানের বিরুদ্ধে পুলিশের অভ্যন্তরীণ তদন্ত শুরু হয়েছে। তদন্ত শেষে তার বিরুদ্ধে এমন গর্হিত কাজের অভিযোগ প্রমাণিত হলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, কেউই আইনের ঊর্ধে নয়, সে যত বড় কর্মকর্তাই হোক না কেন।

সম্প্রতি এক নারী অভিযোগ করেন, গত বছররে জুলাই মাসে ডিআইজি মিজানুর রহমান তাকে তুলে নিয়ে তার বেইলী রোডের বাসায় আটকে রাখেন। এরপর বগুড়া থেকে তার মাকে ডেকে এনে ১৭ জুলাই ৫০ লাখ টাকা দেনমহর ধার্য করে বিয়ে করেন। পরে লালমাটিয়ার একটি ভাড়া বাসায় স্ত্রীর মর্যাদা দিয়ে রাখেন ওই নারীকে। কিন্তু ওই নারী মিজানের একটি ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আপলোড করে নিজের স্বামী হিসেবে উল্লেখ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে যান মিজান।

এরপর নারীকে মারধর করে বের করে দেন। এমনকি তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করে কারাগারে পাঠান। ওই মামলাগুলোয় জামিন পাওয়ার পর মিথ্যা কাবিননামা তৈরির অভিযোগে তার বিরুদ্ধে আরো একটি মামলায় তাকে আটক দেখানো হয়। পরে দু’টি মামলায় জামিনে বেরিয়ে আসার পর পুলিশ কর্মকর্তা মিজানের বরিুদ্ধে এই অভিযোগ তোলেন ওই নারী।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   চট্টগ্রামে হঠাৎ পরিবহণ ধর্মঘট, দুর্ভোগ

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

7 − four =