দাউদ ইব্রাহিম

দাউদ ইব্রাহিমের সম্পদের মালিক হতে চান না ছেলে

পারিবারিক সমস্যার কারণে হতাশায় ভুগছেন মাফিয়া ডন দাউদ ইব্রাহিম। তাঁর মৃত্যুর পর এই ‘বিশাল সাম্রাজ্য’ কে সামলাবে, তা নিয়ে চিন্তিত তিনি। সম্প্রতি এমনটাই জানিয়েছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।

সমস্যাটা তৈরি হয়েছে তাঁর তৃতীয় সন্তান ও একমাত্র ছেলে মইন নওয়াজ ডি কাসকারকে নিয়ে। নিয়ম অনুযায়ী, তাঁর উত্তরসূরি হওয়ার কথা থাকলেও বাবার এই সম্পত্তির প্রতি কোনো আগ্রহ নেই মইনের। পারিবারিক ব্যবসা থেকে ইতিমধ্যেই মুখ সরিয়ে নিয়েছেন তিনি। মনোযোগ দিয়েছেন ধর্মকর্মে। ধর্মশিক্ষার শিক্ষক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চান মইন নওয়াজ।

মহারাষ্ট্রের থানে থানার চাঁদাবাজি প্রতিরোধ সেলের প্রধান প্রদীপ শর্মা বলেন, এটা বোঝা যায় যে মইন তাঁর বাবার অবৈধ কার্যকলাপের বিরুদ্ধে। তিনি মনে করেন, বাবার এই কার্যকলাপ তাঁদের পুরো পরিবারকে বিশ্বব্যাপী একটি কুখ্যাতি এনে দিয়েছে। এ জন্য তাঁদের পৃথিবীর সর্বত্র পালিয়ে বেড়াতে হয়।

এনডিটিভি অনলাইনের খবরে বলা হয়েছে, তিনটি চাঁদাবাজির মামলায় গত সেপ্টেম্বরে গ্রেপ্তার করা হয় দাউদ ইব্রাহিমের ছোট ভাই ইকবাল ইব্রাহিম কাসকারকে। প্রদীপ শর্মার নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদে দাউদ ইব্রাহিমের জীবনের এ তথ্য বেরিয়ে এসেছে বলে পুলিশের ভাষ্য।

ইকবাল কাসকার তদন্তকারী কর্মকর্তাদের জানিয়েছেন যে কে তাঁর এই বিশাল সাম্রাজ্যের দায়িত্ব নেবে, এটা নিয়ে হতাশায় ভুগছেন দাউদ ইব্রাহিম। এ ছাড়া তাঁদের আরেক ভাই আনিস ইব্রাহিম কাসকার এখন বার্ধক্যজনিত সমস্যায় ভুগছেন। অন্য ভাইয়েরা মারা গেছেন। এমন কোনো নির্ভরযোগ্য ঘনিষ্ঠ আত্মীয় নেই, যাকে এই সাম্রাজ্যের দায়িত্ব দেওয়া যায়, এটা উপলব্ধি করছেন দাউদ।

তদন্তকারী কর্মকর্তাদের দাউদ ইব্রাহিমের ভাই আরও জানান, তাঁর ভাতিজা মইন একজন সম্মানিত ও প্রতিষ্ঠিত মাওলানা। তিনি একজন কোরআনে হাফিজ। করাচির অভিজাত ক্লিফটন এলাকার পারিবারিক বিলাসবহুল বাংলোর স্বাচ্ছন্দ্য ছেড়ে তিনি মসজিদেই বেশি থাকেন। তাঁর স্ত্রী সানিয়া ও ছোট তিন সন্তান তাঁর সঙ্গেই থাকে। মসজিদ ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষের দেওয়া ছোট্ট একটি বাড়িতে তাঁরা থাকেন।

প্রদীপ শর্মা বলেন, ‘এটা পরিষ্কার যে মইন তাঁর বাবার ব্যবসার দায়িত্ব নিচ্ছেন না। এমনকি জাঁকজমকপূর্ণ জীবন থেকেও নিজেকে গুটিয়ে নিয়েছেন তিনি।’

মইন ব্যবসায় ব্যবস্থাপনা বিষয়ে স্নাতক করেছেন। আগে বাবাকে বিভিন্ন কাজে সাহায্য করলেও আস্তে আস্তে ধর্মের দিকে ঝুঁকে পড়েন তিনি। ২০১১ সালে তিনি বিয়ে করেন করাচির ধনাঢ্য ব্যবসায়ীর মেয়ে সানিয়া শেখকে।

Comments

comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

19 − two =