যুক্তরাষ্ট্রে ২০১৬ সালে অনুষ্ঠিত প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মস্কোর হস্তক্ষেপের ব্যাপারে মার্কিন বিশেষ বিচার বিভাগীয় তদন্তে শুক্রবার রাশিয়ার ১৩ নাগরিককে অভিযুক্ত করা হয়েছে। এ নির্বাচনের ফলাফল উল্টে দিতে গোপনে প্রচারণা চালানোর জন্য তাদেরকে অভিযুক্ত করা হলো। খবর এএফপি’র।
তদন্তে বলা হয়, যুক্তরাষ্ট্রে সামাজিক বিভক্তি সৃষ্টি এবং ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনসহ আমেরিকার রাজনীতিতে প্রভাব খাটানোর লক্ষ্যে ২০১৪ সালে এক ধরণের প্রচারণার কাজ শুরু করা হয়।
মুলার অভিযোগ করেন যে ২০১৬ সালের মাঝামাঝির দিকে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের ঘনিষ্ঠ মিত্র ইয়েভজেনির দিক নির্দেশনায় প্রচারণা চালানো হয়। এতে ট্রাম্পের ইতিবাচক দিক এবং প্রতিদ্ব›দ্বী প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের নেতিবাচক দিকগুলো বড় করে তুলে ধরা হয়।
এক্ষেত্রে আরো অভিযোগ করা হয় যে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন কেন্দ্রিক এ ধরনের প্রচারণার কাজ চালাতে শত শত লোককে নিয়োগ করা হয়। আর এ কাজে লাখ লাখ ডলার ব্যয় করা হয়। এ তদন্তে আরো তিন কোম্পানিকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।
এদিকে মস্কো এমন অভিযোগকে ‘হাস্যকর’ হিসেবে অভিহিত করে তা প্রত্যাখান করেছে।
অভিযোগে বলা হয়, গ্রæপের সদস্যরা ফেসবুক, টুইটার, ইউটিউব ও ইনস্ট্রগ্রামে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক হিসেবে নিজেদের পরিচয় দেয়। এসব মাধ্যমে তারা যেসব বিষয় তুলে ধরে তা আমেরিকার অনেক নাগরিকের নজর কাড়ে।
ট্রাম্পের প্রচারণা দলের তালিকাভুক্ত সদস্য নন এমন অনেকের সঙ্গে এ গ্রæপের সদস্যদের যোগাযোগের অভিযোগ রয়েছে। গ্রæপটির মূল লক্ষ্য ছিল যুক্তরাষ্ট্রের রাজনৈতিক প্রক্রিয়ায় অনৈক্য সৃষ্টি করা।
এদিকে এ গ্রæপের দেয়া পোস্ট প্রেসিডেন্টের দুই ছেলে ডন জুনিয়র ও এরিক পুনরায় টুইট করেন। এর পাশাপাশি অন্যান্য শীর্ষ প্রচারণা কর্মকর্তা ও ট্রাম্পের পক্ষের অনেক সদস্যও এগুলো পুনরায় টুইট করেন।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   মিয়ানমারকে চাপ সৃষ্টিতে সিপিসিতে প্রস্তাব গ্রহণ

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

thirteen + 10 =