হলুদ স্যান্ডেল হাতে নিয়ে কালো পোশাকের একজন ফিলিস্তিনি নারী ইসরায়েলি পুলিশের দিকে পাথর ছুড়ে মারছে, সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়া এই ছবিটি ৩০ বছরের পুরনো।

ছবিটি তুলেছিলেন আলফ্রেড ইজোবযাদেহ।

দখলকৃত পশ্চিম তীরের বেইট সাহোর গ্রামে ওই সংঘর্ষের ঘটনাটি ঘটেছিল।

কিন্তু ছবির সেই নারীর পরিচয় এই এতো বছরেও কারো জানা ছিল না।

তবে এই এতো বছর পর তার পরিচয় জানা গেছে। তার নাম মিশেলাইন আওডা।

ইসরায়েলি দখলদারিত্বের প্রতিবাদে ১৯৮৭ সালে ‘ইন্তিফাদা’ বা গণজাগরণের আন্দোলন শুরু করে ফিলিস্তিনিরা। ওই আন্দোলনে ১৪০০জন ফিলিস্তিনি আর ২৭১জন ইসরায়েলি নিহত হয়।

২০০০ সালে দ্বিতীয় দফার ইন্তিফাদা শুরু হয়েছিল, যাতে মারা যায় ৩৩৯২জন ফিলিস্তিনি আর ৯৯৬জন ইসরায়েলি।

মিশেলাইন বলছেন, আমার পরনে ছিল কালো স্কার্ট, হলুদ স্কার্ফ আর হলুদ স্যান্ডেল।

তিনি একজন ফিলিস্তিনি খৃষ্টান। ওই ঘটনার দিন তিনি ছিলেন সেখানকার চার্চে।

মিশেলাইন বলছেন, ‘সেদিন আমার বিশেষ একটি ম্যাসের অনুষ্ঠান ছিল। তাই ওরকম কালো পোশাক পরেছিলাম। সেদিন কোনো বিক্ষোভ হবে বলে ভাবিনি।’

‘কিন্তু আমি দেখতে পেলাম, ইসরায়েলি সেনাবাহিনী এসে তরুণদের সঙ্গে লড়াই শুরু করেছে। আমি সেই তরুণদের সঙ্গে তখনি যোগ দিলাম’, স্মরণ করেন তিনি।

‘এক সময় আমি দৌড়াতে শুরু করেছিলাম। কিন্তু স্যান্ডেল পড়ে দৌড়াতে পারছিলাম না বলে সেগুলো খুলে হাতে নিলাম।’

তিনি বলছেন, ‘একসময় নিচু হয়ে একটি পাথর ছুড়ে ইসরায়েলিদের দিকে ছুড়ে মারলাম। কিন্তু আমি জানতাম না কেউ আমার ছবি তুলছে।’

মিশেলাইন আওডার বয়স এখন ৬৩। তিনি স্থানীয় একটি হোটেলে চাকরি করেন।

তার দুই সন্তান রয়েছে, কিন্তু তিনি চান না, তারা আবার এরকম কোনো সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ুক।

হলুদ স্যান্ডেল হাতে ছবিতে বিখ্যাত হলেও, এখন অবশ্য তার আর কোনো হলুদ রঙের স্যান্ডেল নেই।

সূত্র: বিবিসি

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   আফগানিস্তানে আইএসের দুই কমান্ডারসহ ২০ জঙ্গি নিহত

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 × 1 =