ফেনী প্রতিনিধি: গত তিন দিনের টানা বর্ষন ও ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে ফেনীর ফুলগাজী ও পরশুরামে মুহুরী, কহুয়া ও সিলোনিয়া নদীর ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধের ১২টি স্থান দিয়ে পানি প্রবেশ করে দুই উপজেলার প্রায় ২৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে।

বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে গ্রামীণ সড়কগুলো। হাজার হাজার হেক্টর রোপা আমন ও শীতকালীন সবজি তলিয়ে গেছে পানির নিচে।

বর্তমানে মুহুরী নদীর পানি বিপদ সীমার ২০০ সে.মি. উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে বলে জানা গেছে। এদিকে বন্যার পানির কারণে পরশুরামের সাথে ফুলগাজীর সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, ফুলগাজীর মুহুরী ও সিলোনিয়া নদীর ভেঙ্গে যাওয়া বাঁধের স্থান দিয়ে পানি প্রবেশ করে উপজেলার সদর ইউনিয়নের নিলক্ষী, গোসাইপুর, উত্তর শ্রীপুর, দেড়পাড়া, শাহাপাড়া, ঘনিয়ামোড়া,বাসুরা, মুন্সীরহাট ইউনিয়নের নোয়াপুর, করইয়া ও বদরপুর গ্রামসহ প্রায় ১৫টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এসব গ্রামের শতাধিক মাছের খামার ও পুকুর ডুবে অনেক টাকার মাছ ভেসে গেছে।

এদিকে পরশুরামে ভারতের উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে পরশুরামের মূহুরী, কহুয়া ও সিলোনিয়া নদীর ৫টি স্থানে বাঁধ ভেঙ্গে প্রায় ১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। উপজেলার মির্জানগর ইউনিয়নে ১টি, চিথলিয়া ইউনিয়নে ২টি, বক্সমাহমুদ ইউনিয়নে ২টি স্থানে বন্যায় পানিতে বাঁধ ভেঙ্গে গেছে। বিস্তৃর্ণ এলাকায় ফসলি জমি, পুকুরের মাছ ও শীতকালীন সবজি তলিয়ে গেছে।

পরশুরাম পৌরসভা মেয়র নিজাম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী সাজেল জানান, বন্যার পানিতে ডুবে গেছে তার ১২টি পুকুর। এতে লাখ লাখ টাকার মাছ ভেসে গেছে।

ফেনী পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী কহিনুর আলম জানান, বৃষ্টি পুরোপুরি বন্ধ হলে ক্ষতিগ্রস্ত বাঁধ গুলো মেরামত করা সম্ভব হবে।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   ১৩ই ডিসেম্বর মার্কিন দূতাবাস ঘেরাও করবে হেফাজতে ইসলাম

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

thirteen − ten =