আবু আজাদ:

কিশোরগঞ্জের নিকলী উপজেলায় জলমহালে বাঁধ দেওয়াকে কেন্দ্র করে দু’পক্ষের সংঘর্ষে স্কুল ছাত্রসহ ৬ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। ২ নভেম্বর বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার দামপাড়া ইউনিয়নের নোয়াপাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

গুলিবিদ্ধরা হলেন- উপজেলার নোয়াপাড়া গ্রামের পছন্দ আলী মিয়ার ছেলে বাচ্চু মিয়া (৪৫), আহসানপুর গ্রামের হোসেন আলীর ছেলে এরুক মিয়া (২৫), নোয়াপাড়া গ্রামের গোলাম হোসেনের ছেলে আব্দুল বারিক (৪৫), নজরুল হকের ছেলে নাজমুল (২৩) ও আবদুর রহমানের ছেলে মনু মিয়া (৩৮), বড়কান্দা গ্রামের রেস্টু মিয়ার ছেলে রাব্বী মিয়া (১৫)। আহত রাব্বী আলীয়পাড়া বড়কান্দা নুরজাহান হোসেন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্র। এদের মধ্যে নাজমুলকে গুরুতর আহত অবস্থায় কিশোরগঞ্জ সদর জেনারেল হাসপাতাল ও অন্যদের নিকলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ৪৮ একর আয়তনের ছাকিডুয়ার বিল তিন বছর মেয়াদে লিজ নিয়ে মাছ চাষ করছেন ইজারাদার মতি মিয়ার লোকজন। কিন্তু মতি মিয়া কয়েকদিন ধরেই লিজ নেওয়া জলমহালের বাইরে গিয়ে অন্য কৃষকদের জমিতে পাটিবাঁধ দেওয়ার চেষ্টা করছেন। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় কৃষকদের সাথে বিরোধ চলছিল তার। কেননা এ বাঁধ দিলে আশেপাশের শত শত একর জমিতে পানি সেচ দেওয়া যাবে না। এমনই এক সময়ে বৃহস্পতিবার সকাল ১১টার দিকে পাটিবাঁধ দিতে শুরু করেন মতি মিয়ার লোকজন। খবর পেয়ে স্থানীয় কৃষকেরা বাধা দিতে গেলে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। একপর্যায়ে ইজারাদার মতি মিয়ার লোকেদের গুলিতে ৬ জন আহত হয়।

এ বিষয়ে ইজারাদার ইজারাদার মতি মিয়া বলেন, কৃষকদের সঙ্গে তার লোকদের একটি ঝামেলা হয়েছে বলে তিনি শুনেছেন। কিন্তু গুলির খবরটি সঠিক নয়।

ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিকলী থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. নাসির উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, সংঘর্ষে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহারের খবরটি আমি শুনেছি। তবে এখন পরিস্থিতি শান্ত রয়েছে। ঘটনায় এখনও কোন মামলা বা কাউকে আটক করা হয়নি।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

19 + 4 =