ঠাকুরগাঁও: বিধবা নারীকে বিয়ের লোভ দেখিয়ে টানা ৩ বছর যাবৎ ধর্ষণ করে আসছে ঠাকুরগাঁওয়ের ঢোলারহাট ইউনিয়ন যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বাবুল হোসেন। আজ-কাল করে করে বিয়ের আশ্বাসে বিভিন্ন সময়ে অবৈধ মেলামেশায় অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়ে ওই বিধবা নারী। সন্তান প্রসবের আগেই তাকে বিয়ে করার জন্য চাপ দিতে লাগলে বাবুল হোসেন ওই নারীকে গর্ভপাত করানোর শর্ত দেন। তাই গত সোমবার ওই নারীর পাঁচ মাসের গর্ভের ভ্রুণ ওই এলাকারই এক ধাত্রী গর্ভপাত ঘটায়। আর তাতেই শুরু হয় অতিরিক্ত রক্ত ক্ষরণ। যার দরুন গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ওই নারীকে। বর্তমানেে সেখানে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছেন তিনি। অথচ এ ঘটনায় জানাজানির ফলে গা-ঢাকা দিয়েছে যুবলীগের ইউনিয়ন কমিটির এই নেতা। ঢোলারহাট ইউপি চেয়ারম্যান সীমান্ত কুমার বর্মন ওরফে নির্মল রাতে ওই বিধবাকে দেখতে হাসপাতালে যান। সেখানে তিনি বলেন, ধর্ষিত বিধবা তার ইউনিয়নের এলজিইডির রাস্তা তদারকি এলসিএস কর্মী। তার সঙ্গে কোনো ধরনের অনাচার হয়ে থাকলে তিনি তার দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানান। এসময় নির্যাতনের শিকার ওই নারী অভিযোগ করে বলেন, ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা বাবুল বিয়ের আশ্বাস দিয়ে দীর্ঘ তিন বছর তাকে ধর্ষণ করে আসছে। সর্বশেষ তার গর্ভ পরীক্ষা করার নাম করে গর্ভপাত ঘটানো হয়। এ ব্যাপারে ইউনিয়ন যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক সুরেশ চন্দ্র বর্মন বলেন, যুবলীগের নাম ভেঙে কেউ কোনো অপকর্ম করে থাকলে সংগঠন তার দায়-দায়িত্ব নেবে না। আইনশঙ্খলা বাহিনী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে যুবলীগের কোনো আপত্তি থাকবে না। রুহিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার রায় জানান, ঢোলারহাট ইউনিয়ন যুবলীগ নেতা বাবুলের বিরুদ্ধে এক বিধবার গর্ভপাত ঘটানোর অভিযোগ তিনি শুনেছেন। লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে মামলা রুজু করা হবে। এদিকে ঘটনা জানাজানি হওয়ার পর অভিযুক্ত যুবলীগ নেতা বাবুল গা-ঢাকা দিয়েছেন

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

four × 2 =