ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে ‘লেডি গান্ধী’ নামে অভিহিত করেছেন গুজরাটের পাতিদার সম্প্রদায়ের নেতা হার্দিক প্যাটেল। এ সম্প্রদায়ের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে নেতৃত্ব দিয়ে সারা ভারতে পরিচিতি পান হার্দিক। গতকাল শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গে মমতার সঙ্গে বৈঠক করেন হার্দিক।

হার্দিকের বয়স মাত্র ২৪। ইতিমধ্যে তিনি ঘুম কেড়ে নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিসহ গুজরাটের বিজেপি নেতাদের। গত ডিসেম্বরের গুজরাট বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির মাথাব্যথার কারণ হয়ে উঠেছিলেন হার্দিক। নরেন্দ্র মোদির রাজ্য গুজরাটের বিধানসভার ১৮২ আসনের মধ্যে কংগ্রেস-হার্দিক জোট ছিনিয়ে আনে ৭৯টি আসন।

সেই হার্দিক প্যাটেল গতকাল আসেন কলকাতায়। মুখ্যমন্ত্রী মমতার সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের রাজ্য সচিবালয়ে নবান্নে প্রায় দেড় ঘণ্টা বৈঠক করেন। আলাপ করেন দেশের রাজনীতি নিয়ে। বৈঠক শেষে হার্দিক মমতাকে বলেন, ’এই মুহূর্তে দেশে শক্তিশালী দল হলো কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেস। মোদির বিরুদ্ধে লড়তে কংগ্রেস-তৃণমূল কংগ্রেসের ঐক্যবদ্ধ লড়াইয়ের বিকল্প নেই।’ মমতা এদিন হার্দিককে তৃণমূলে যোগদানেরও আহ্বান জানান।

হার্দিক সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি তো গান্ধীজিকে দেখিনি। তাঁর আন্দোলনের কথা জেনেছি। তাই এখন আমার কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় “লেডি গান্ধী”। ইন্দিরাজির পর এত সংগ্রাম করে উঠে এসেছেন মমতাদি।’

হার্দিক বলেন, ‘মমতাদি বলেছেন, তোমার রাজনীতিতে আসা উচিত। আমার দলের দরজা তোমার জন্য খোলা। গুজরাটে এই দল চালাতে পারো। আমি তাঁকে বলেছি, এ বিষয়ে পরে জানাব।’

এদিন হার্দিক সাংবাদিকদের কাছে জোট রাজনীতির কোনো কথা তোলেননি। বলেছেন, ‘আমি রাজনৈতিক ব্যক্তি নই। আমি একজন আন্দোলনকারী। দিদিও আন্দোলন করেছেন দীর্ঘদিন।’

হার্দিক প্যাটেল মমতাকে গুজরাট সফরেরও আমন্ত্রণ জানান। তিনি বলেন, ২০১৯ সালের পরবর্তী লোকসভা নির্বাচনে তিনি মমতার হয়ে পশ্চিমবঙ্গে প্রচারে আসবেন।

আজ শনিবার কলকাতায় আয়োজিত ‘দ্য টেলিগ্রাফ’ বিতর্কে অংশ নেওয়ার কথা হার্দিক প্যাটেলের।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   ভারতীয় বিমান বাহিনীর বিমান বিধ্বস্ত, ২ পাইলট নিহত

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

5 × 4 =