দীর্ঘদিনের অসুস্থতায় চিকিৎসা শেষে চট্টগ্রামে নিজ বাসভবনে ফিরছেন চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাবেক মেয়র এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরী। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী শনিবার সকালে তিনি চট্টগ্রামে ফিরবেন বলে জানিয়েছেন মো. ওসমান গণি।

ওসমান গণি এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর একান্ত সচিব। তিনি বলেন, মহিউদ্দিন চৌধুরী এখন অনেকটা সুস্থ। আগামি শনিবার তিনি চট্টগ্রামে ফিরছেন। এদিকে মহিউদ্দিন চৌধুরীর ফেরার খবরে আনন্দে উৎফুল্ল চট্টগ্রামের মানুষ।

ফেরার দিনে মহিউদ্দিন চৌধুরীকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানোর প্রস্তুতি নিচ্ছেন মহানগর আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি খোরশেদ আলম সুজন বলেন, বঙ্গবন্ধুর মতো মহিউদ্দিন উদ্দিন চৌধুরীও হচ্ছেন চট্টগ্রামের বন্ধু। তাকে ছাড়া চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের অস্তিত্ব চিন্তা করা যায় না। তার অসুস্থতায় চট্টগ্রামের মানুষ দিশেহারা হয়ে গিয়েছিল। তার সুস্থতায় চট্টগ্রামের মসজিদ, মন্দির, গীর্জাসহ সকল ধর্মীয় উপসনালয়ে দোয়া কামনা করেছে মানুষ। দলীয় ও অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা মিলাদ ও দোয়া মাহফিল করে তার দীর্ঘায়ু কামনা করেছিল।

এখন তার সুস্থতার খবরে চট্টগ্রামের মানুষ উৎফুল্ল-আনন্দিত। ফেরার দিনে তাকে ফুলে ফুলে ভরিয়ে দেওয়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে নেতাকর্মীরা। প্রিয় নেতার ফিরে আসায় আনন্দ উৎসব করবে চট্টগ্রামের মানুষ। এ জন্য সাংগঠনিকভাবে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

তিনি জানান, মহিউদ্দিন চৌধুরী বর্তমানে ঢাকায় পরিবারের সঙ্গে আছেন। তিনি অনেকটা সুস্থ বলে জানিয়েছেন পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু তার মন পড়ে রয়েছে চট্টগ্রামে। দীর্ঘদিন চট্টগ্রামবাসীকে না দেখায় ফেরার জন্য তিনি উদ্রগীব হয়ে পড়েছেন।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর বড় ছেলে ও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিষ্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল জানান, সিঙ্গাপুরের গ্লানিগ্রেøস হাসপাতালে চিকিৎসার পর চিকিৎসকদের নির্দেশনা অনুযায়ী কিডনি ডায়ালাইসিস প্রক্রিয়াধীন রাখতে বাবাকে আবারও ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর বাবা মোটামুটি সুস্থ হয়ে উঠেন।

নওফেল বলেন, বাবা এখন সবার সাথে কথা বলতে পারেন। খেতে পারেন। তবে হাঁটা-চলা এখনো তেমন করতে পারছেন না। কিডনিতে এখনো কিছুটা সমস্যা রয়ে গেছে। স্কয়ার হাসপাতালে নিয়মিত ডায়ালাইসিস সাপোর্ট দিতে হচ্ছে। তবুও বাবার পীড়াপীড়িতে শনিবার সকালে বিমানযোগে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, চট্টগ্রামের তিন বারের মেয়র ৭৪ বছর বয়সী মহিউদ্দিন চৌধুরী দীর্ঘদিন ধরে হৃদযন্ত্র ও কিডনি জটিলতায় ভুগছিলেন। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় গত ১১ই নভেম্বর রাতে তাকে চট্টগ্রামের ম্যাক্স হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তাকে আইসিইউতে রাখা হয়।
উন্নত চিকিৎসার জন্য পরদিন হেলিকপ্টারে করে নিয়ে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর সেখানকার চিকিৎসকদের পরামর্শে অস্ত্রোপচারের জন্য গত ১৬ই নভেম্বর এয়ার এম্বুলেন্সে করে তাকে সিঙ্গাপুরে নেওয়া হয়। সেখানে অস্ত্রোপচারের পর গত ২৬শে নভেম্বর রবিবার রাতে দেশে ফিরে তাকে ঢাকার স্কয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকদের তত্ত্বাবধানে রাখা হয়।

এর আগে চট্টগ্রাম ম্যাক্স হাসপাতালের চিকিৎসক জহির উদ্দিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, মহিউদ্দিন চৌধুরীর দুটি কিডনিতেই সমস্যা। পা দুটো দুর্বল। শরীর উপরের দিকে ভারি এবং নিচের দিকে হালকা হয়ে গেছে। দীর্ঘদিন ধরে হার্টের বিভিন্ন জটিলতায় ভুগছেন তিনি। অনেকবার তার ওপেন হার্ট সার্জারি হয়েছে। তবুও অনেকটা মনের জোরেই চলছিলেন এ নেতা।

[এমকে]

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

eleven − 7 =