মালদ্বীপে পার্লামেন্টের সেক্রেটারি জেনারেলের পদত্যাগের প্রেক্ষাপটে বিরোধী আইনপ্রণেতারা পার্লামেন্ট ভবন চত্বরে প্রবেশের চেষ্টা করায় সেনাবাহিনী ভবনটি ঘিরে রেখেছে। দেশটির এটর্নি জেনারেল বলেছেন, প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনকে গ্রেফতারে সুপ্রিম কোর্টের একটি নির্দেশ অত্যাসন্ন।

এদিকে স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, বিপুল সেনা উপস্থিতি সত্ত্বেও কিছু বিরোধী আইনপ্রণেতাকে ভেতরে প্রবেশ করতে দেয়া হয়েছে।
রোববার সকালে পার্লামেন্টের সেক্রেটারি জেনারেল আহমেদ মোহামেদ সুনির্দিষ্ট কোন কারণ উল্লেখ না করেই পদত্যাগের ঘোষণা দেন। নিরাপত্তার কারণে চলতি বছরের প্রথম পার্লামেন্ট অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্যে স্থগিত করার পরই পার্লামেন্টের সেক্রেটারি জেনারেল পদত্যাগের এ ঘোষণা এলো। সোমবার পার্লামেন্ট অধিবেশন শুরুর কথা ছিল।

দেশটির সুপ্রিম কোর্ট বৃহস্পতিবার স্বেচ্ছা-নির্বাসিত সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদসহ কারাদ-প্রাপ্ত রাজনৈতিক নেতাদের অবিলম্বে মুক্তির নির্দেশ দেয়ার পর মালদ্বীপে নতুন করে রাজনৈতিক অস্থিরতা তৈরি হয়।
এদিকে স্থানীয় গণমাধ্যম জানায়, মালদ্বীপের সরকার রোববার দেশটির প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিনকে গ্রেফতারে সুপ্রিম কোর্টের একটি আসন্ন নির্দেশের কথা প্রকাশ করে। তবে পুলিশ ও সেনাবাহিনী জোর দিয়ে বলছে, তারা এ আদেশ কার্যকর করবে না।

সেনা ও পুলিশ প্রধানের পাশে বসে দেশটির এটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ আনিল সাংবাদিকদের বলেন, সরকার খবর পেয়েছে যে, প্রেসিডেন্ট ইয়ামিনকে গ্রেফতারে সুপ্রিম কোর্টের একটি নির্দেশ অত্যাসন্ন।
তবে তিনি এ পদক্ষেপকে ‘অসাংবিধানিক’ অভিহিত করে বলেন, সেনাবাহিনী ও পুলিশ প্রেসিডেন্টকে গ্রেফতারের যেকোনো আদেশ প্রত্যাখ্যান করবে।

মালদ্বীপ পার্লামেন্ট বন্ধ করে দিয়েছে সেনাবাহিনী
মালদ্বীপের নিরাপত্তা বাহিনী দেশটির পার্লামেন্ট কমপ্লেক্স বন্ধ করে দিয়েছে, বিরোধী এমপিদের গ্রেফতার করেছে। প্রেসিডেন্ট আবদুল্লাহ ইয়ামিন কারারুদ্ধ রাজনীতিবিদদের মুক্তি দিতে অস্বীকার করার পর সৃষ্ট সঙ্কটের মধ্যে সেনাবাহিনী এ অবস্থান গ্রহণ করল।

রোববার বিরোধী দলের সদস্যরা দেশটির অ্যাটর্নি জেনারেলের বরখাস্ত চেয়ে পার্লামেন্টে একটি আবেদন করার পর সেনাবাহিনীরা পার্লামেন্ট ভবন ঘিরে ফেলে। এর আগে সুপ্রিম কোর্ট আটক রাজবন্দিদের মুক্তি দিতে সুপ্রিম কোর্ট নির্দেশ দেয়। কিন্তু অ্যাটর্নি জেনারেল ওই আদেশ পালন করতে সম্মত হননি।

আরও পড়ুনঃ   জাতিসংঘের বিবৃতিতে সু চির আপত্তি

সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাশিদকেও মুক্তি দেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তিনি এখন চিকিৎসার জন্য বিদেশে অবস্থান করছেন। দুর্নীতির অভিযোগে তার সাজা হয়েছিল। পরে চিকিৎসার জন্য বিদেশে গিয়ে আর দেশে ফেরেননি।
দেশটির সর্বোচ্চ আদালত ১২ এমপিকে পুনর্বহাল করার নির্দেশও দিয়েছে। এর ফলে ৮৫ সদস্যবিশিষ্ট পার্লামেন্টে বিরোধীদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রতিষ্ঠা হয়ে যায়।

সেনাপ্রধান জানিয়েছেন, তিনি অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ আনিলের আদেশ অনুসরণ করবেন, দেশকে নৈরাজ্যের দিকে যেতে দেবেন না।

এদিকে পুলিশ বিরোধী দলের দুই পার্লামেন্ট সদস্যকে গ্রেফতার করেছে। তারা মালে বিমানবন্দরে অবতরণ করেছিল বলে এক মুখপাত্র আলজাজিরাকে জানিয়েছেন। সুপ্রিম কোর্ট বরখাস্ত করা যে ১২ এমপিকে পুনর্বহালের নির্দেশ দিয়েছে, এ দুজন তাদের মধ্যে রয়েছেন।
এদিকে জাতিসঙ্ঘ মহাসচিব সুপ্রিম কোর্টের আদেশ পালন করার জন্য মালদ্বীপের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

nineteen − 1 =