লিওনেল মেসি-ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ছাড়া এখনকার ফুটবল কল্পনা করা যায়? যে-কেউ বলবে, না, সেটা সম্ভব নয়। কিন্তু একবার কল্পনা করুন তো এ দুই নক্ষত্রহীন ফুটবল আকাশ! মানে, ফুটবল দুনিয়ায় মেসি-রোনালদো নামে কেউ নেই। তখন মৌসুমের সর্বোচ্চ গোলদাতা হতেন কে? কার রাজত্ব চলত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে? কার শোকেসটা বেশি পরিপূর্ণ থাকত ট্রফি আর পদকে?

উয়েফা ঠিক এ ব্যাপারটাই কল্পনা করার চেষ্টা করেছে। মেসি-রোনালদো ছাড়া ইউরোপিয়ান ফুটবল! দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বীর অনুপস্থিতিতে উপকৃত হতেন কারা? আসুন জেনে নিই—

চ্যাম্পিয়নস লিগে সর্বোচ্চ গোলদাতা (বাছাইপর্বসহ)
এখন : ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (১১৫)
না থাকলে: রাউল গঞ্জালেস (৭১)

মেসি-রোনালদো না থাকলে বর্তমান খেলোয়াড়দের মধ্যে সর্বোচ্চ গোলদাতা হতেন করিম বেনজেমা। কারণ, তালিকাটিতে ৯৭ গোল নিয়ে মেসি দ্বিতীয়, এরপর রাউল গঞ্জালেস ও রুদ ফন নিস্টলরয়। রাউল ও নিস্টলরয় বেশ আগেই অবসর নেওয়ায় শীর্ষে উঠে আসতেন বেনজেমা। তবে রোনালদো না থাকলে বেনজেমার গোলের সংখ্যা হয়তো বাড়ত। বিশ্লেষকদের মতে, বেনজেমাকে নিয়ে প্রতিপক্ষ দল তাদের বক্সে ব্যতিব্যস্ত থাকে বলেই রোনালদো খেলার জন্য ফাঁকা জায়গা পান। অর্থাৎ, রোনালদো না থাকলে বেনজেমা হয়তো গোলসংখ্যায় রাউলকেও টপকে যেতেন!

উয়েফা ক্লাব আসরে সর্বোচ্চ গোলদাতা
এখন: ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (১১৭)
না থাকলে: রাউল গঞ্জালেস (৭৭)

১০০ গোল নিয়ে মেসি দ্বিতীয়। কিন্তু মেসির সঙ্গে রোনালদোও তো নেই! তাহলে সর্বোচ্চ গোলদাতা কে? তিনি জ্লাতান ইব্রাহিমোভিচ। ইউসেবিওর সমান ৫৬ গোল নিয়ে সুইডেনের সাবেক স্ট্রাইকারটি এখন যুগ্মভাবে দশম। তবে মেসি-রোনালদো না থাকলে সর্বোচ্চ গোলদাতা হতেন। কারণ, এ তালিকায় তিন থেকে নয় পর্যন্ত সবাই সাবেক ফুটবলার।

টুইটারে সর্বোচ্চ অনুসারী
এখন: ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো ( ৬ কোটি ৫৬ লাখ)
না থাকলে: নেইমার (৩ কোটি ৫৮ লাখ)

ইনস্টাগ্রামে সর্বোচ্চ অনুসারী
এখন: ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (১১ কোটি ৬০ লাখ)
না থাকলে: নেইমার (৮ কোটি ৫১ লাখ)

আরও পড়ুনঃ   দক্ষিণ আফ্রিকান টেস্ট দলে দুই নতুন মুখ

চ্যাম্পিয়নস লিগে গত ১০ মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলদাতা
চ্যাম্পিয়নস লিগে গত ১০ মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলদাতার আসনটিতে একক কিংবা যুগ্মভাবে দখল নিয়েছেন মেসি-রোনালদো। তাঁদের এই দ্বৈরথে ২০১৪-১৫ মৌসুমে শুধু ঢুকে পড়েছিলেন নেইমার। আসুন দেখে নিই মেসি-রোনালদো না থাকলে আসরটিতে গত ১০ মৌসুমে কে বা কারা হতেন সর্বোচ্চ গোলদাতা—
২০০৭-০৮: তোরেস, দ্রগবা, জেরার্ড। ২০০৮-০৯: জেরার্ড, ক্লোস। ২০০৯-১০: ওলিচ। ২০১০-১১: মারিও গোমেজ, ইতো। ২০১১-১২: মারিও গোমেজ। ২০১২-১৩: লেভানডভস্কি। ২০১৩-১৪: ইব্রাহিমোভিচ। ২০১৪-১৫: নেইমার। ২০১৫-১৬: লেভানডভস্কি। ২০১৬-১৭: কাভানি, লেভানডভস্কি।

চ্যাম্পিয়নস লিগের এক মৌসুমে সর্বোচ্চ গোলদাতা
এখন: ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (২০১৩-১৪, ১৭ গোল)
না থাকলে: রুদ ফন নিস্টলরয় (২০০২-০৩, ১২ গোল), মারিও গোমেজ (২০১১-১২, ১২ গোল)

চ্যাম্পিয়নস লিগে সর্বোচ্চ হ্যাটট্রিক
এখন: ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো (৭)
না থাকলে: ইনজাঘি, মারিও গোমেজ, লুই আদ্রিয়ানো (৩)

ব্যালন ডি’অর
এখন: মেসি ও রোনালদো (৫)
না থাকলে: মিশেল প্লাতিনি, ইয়োহান ক্রুয়েফ ও মার্কো ফন বাস্তেন।

এ দুই মহাতারকা না থাকলে প্লাতিনি, ক্রুইফদের রেকর্ডটা অক্ষত থাকত। তবে এই দুজনের পেছনে থেকে তৃতীয় হওয়া খেলোয়াড়কে সেরা হিসেবে ধরে নিলে কিন্তু চমকে উঠতে হবে। মেসি বা রোনালদো না থাকলে দুবার করে ব্যালন ডি’অর জেতা হয়ে যেত জাভি, ইনিয়েস্তা ও নেইমারের। একবার করে পুরস্কার জিততেন গ্রিজমান, তোরেস ও রিবেরি।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

five × three =