কিশোরগঞ্জের ভৈরবে ছাত্রী মেসে ঢুকে ধর্ষণে ব্যর্থ হয়ে তাসলিমা আক্তার আমেনা নামে এক কলেজছাত্রীকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে রক্তাক্ত জখম করেছে তার কথিত প্রেমিক আরিফ নামে এক যুবক।

গতকাল সোমবার রাত ৭টার দিকে শহরের ভৈরবপুর উত্তরপাড়া এলাকার রফিকুল ইসলামের ছাত্রী মেসে এঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই এলাকাবাসী অভিযুক্ত আরিফকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়।

গুরুতর আহত অবস্থায় তাসলিমা আক্তার আমেনা নামের ওই ছাত্রীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে ভাগুলপুর জহুরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়।

আহত আমেনা রফিকুল ইসলাম মহিলা কলেজের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্রী ও নরসিংদী জেলার বেলাবো উপজেলার গুলগুলিয়া গ্রামের আইনউদ্দিন মিয়ার কন্যা। এবং অভিযুক্ত যুবক আরিফ একই জেলার মনোহরদী উপজেলার হাতিরদিয়া গ্রামের হারিছ মিয়ার ছেলে।

এঘটনায় আহত আমেনার মামা হাদিউর রহমান বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে আরিফসহ অজ্ঞাতনামা ৪ জনকে আসামি করে ভৈরব থানায় মামলা করেছেন।

ভৈরব থানার ওসি (তদন্ত) মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেছেন, আহত আমেনা তাকে ধর্ষণের চেষ্টার ব্যাপারটি পুলিশকে জানিয়েছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ৬ বছর ধরে আরিফ ও আমেনার মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক চলছিল। পরিবারের লোকজন আমেনার বিয়ে অন্যত্র ঠিক করলে আরিফ ক্ষুব্ধ হয়ে কয়েকজন বন্ধুকে নিয়ে সোমবার রাতে মেসে ঢুকে আমেনাকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এতে ব্যর্থ হলে আমেনাকে মুখে ও বুকে এলোপাতাড়ি ছুরিকাঘাত করে গুরুতর আহত করে। এসময় আমেনার চিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে আরিফকে আটক করে।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   চার দেয়ালের মধ্যে থার্টিফার্স্ট উদযাপন করুনঃ ঢাকা মহানগর পুলিশ

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

ten − four =