ফাওজিয়া ফারহাত অনীকা:

ভালোবাসার সম্পর্কের মাঝে চরাই-উতড়াই থাকবেই। একটা সম্পর্কের মাঝে যেমন একে অপরের প্রতি প্রবল টান থাকবে, তেমনই থাকবে অভিমান ও মনোমালিন্য। তবে সবকিছুর উর্দ্ধে গিয়েও কিছু সম্পর্কের মাঝে সমস্যা দেখা দেয় খুব গুরুত্বরভাবে। অনেক সময় যেটা, একটা বিষাক্ত সম্পর্কের দিকে মোড় নেয়। ছোটখাটো রাগারাগি কিংবা মনোমালিন্য খুব সাধারণ ব্যাপার সম্পর্কের ক্ষেত্রে। এছাড়াও প্রয়োজনে একে অন্যকে মিথ্যাও বলার প্রয়োজন হয়ে থাকে অনেক সময়। দুইজন ভিন্ন মানুষ, তাদের মাঝে ভিন্নতা থাকবেই স্বাভাবিকভাবে। সঙ্গীর ভালোর জন্য অথবা নিজের প্রয়োজনের খাতিরে কখনো কখনো অনিচ্ছাতেও কিছু কথা লুকানোর প্রয়োজন হয়।

কিন্তু সকল কিছুর মাঝেও, একটা বিষয় নিয়ে যেকোন ধরণের লুকোছাপা অথবা মিথ্যা কথা বলা সম্পুর্ণভাবেই এড়িয়ে চলা আবশ্যিক। যেকোন ভাবেই হোক না কেন, এই বিষয়ে মিথ্যা বলা থেকে বিরত থাকতে হবে। সেটা হলো- নিজের আর্থিক অবস্থা নিয়ে মিথ্যা কথা বলা তথা বিশ্বাসঘাতকতা করা! ওয়েলথ ম্যানেজমেন্ট ফার্ম এর ম্যানেজিং ডিরেক্টর এবং ‘The Money Queen’s Guide: For Women Who Want to Build Wealth and Banish Fear’ বইয়ের লেখিকা ক্যারী কারবোনারা’র মতে, “নিজের আর্থিক অবস্থা নিয়ে সঙ্গীর সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করলে ভালোবাসার সম্পর্কটি একদম বিষাক্ত হয়ে ওঠে।”

তিনি আরো বলেন, “টাকাপয়সা হলো ভালোবাসার সম্পর্কের মাঝে লিটমাস কাগজের একটি পরীক্ষা। যদি এই টাকাপয়সার ব্যাপার নিয়ে সমস্যা থাকে, তবে অবশ্যই সম্পর্কের মাঝেই সমস্যা তৈরি হবে। বিশেষ করে, যদি কোন লুকায়িত ঋণ অথবা ব্যাংক অ্যাকাউন্ট থেকে থাকে।”

এটা সম্পর্কের মাঝে খুবই ‘অ্যালার্মিং’ হিসেবে ধরা হয়ে থাকে। ‘২০১৬ হ্যারিস পোল’ থেকে দেখা গেছে, ৪২ যুগল তাদের ভালোবাসার সম্পর্কের মাঝে অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে বিশ্বাসঘাতকতা করে থাকেন! শুধু তাই নয়! সাম্প্রতিক সময়ে ক্রেডিটকার্ড.কম নামের একটি প্রতিষ্ঠান সার্ভে করে বের করেছে, প্রায় ১২ মিলিয়ন আমেরিকান তাদের সঙ্গীর কাছ লুকিয়ে সিক্রেট ব্যাংক একাউন্ট এবং ক্রেডিট কার্ড তৈরি করেছে। এরই সাথে হ্যারিস পোল জানায়, ৭৫ শতাংশ ক্ষেত্রেই অর্থনৈতিক অবস্থা নিয়ে লুকোছাপা ও মিথ্যা বলা সম্পর্কের উপরে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে থাকে।

আরও পড়ুনঃ   জামায় এই লুপের রহস্য জানেন কী?

সম্পর্কের মাঝে স্বচ্ছতা ধরে রাখার জন্য নিজের অর্থনৈতিক অবস্থাক পুরোপুরিভাবে সঙ্গীর কাছে খোলাসা করা প্রয়োজন। লুকোছাপা নিয়ে সম্পর্ক কখনোই এগিয়ে যেতে পারে না। বিশেষ করে সেটা যদি হয় নিজের অর্থনৈতিক অবস্থার মতো একটি গুরুতর বিষয় নিয়ে।

সূত্র: Reader’s Digest

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

19 − fourteen =