ডারবানে সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে টস জিতলে আগে ব্যাটিং করতেন বিরাট কোহলি। কিন্তু টস জিতে ব্যাটিংটা নিলেন দক্ষিণ আফ্রিকা-দলপতি ফ্যাফ ডু প্লেসি। ওয়ানডেতে রান তাড়া করায় ভারতীয় অধিনায়কের ‘ক্ষমতা’ নিশ্চয়ই জানা ছিল তাঁর! ডু প্লেসি এখন ভাবছেন, ভারতকে আগে ব্যাটিংয়ে পাঠালেই বোধহয় ভালো হতো!

আগে ব্যাটিংয়ে নেমে ডু প্লেসির (১২০) সেঞ্চুরিতে ৮ উইকেটে ২৬৯ রানের চ্যালেঞ্জিং স্কোরই গড়েছিল দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু কাল ভারত এ ম্যাচটা জিতেছে প্রতিপক্ষ অধিনায়কের সেঞ্চুরির জবাবে নিজেদের অধিনায়কের সেঞ্চুরিতে! কোহলির ১১২ রানের ইনিংস এবং অজিঙ্কা রাহানের (৭৯) ফিফটিতে ২৭ বল হাতে রেখে ৬ উইকেটে জিতেছে ভারত। ছয় ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল ভারত। রোববার সেঞ্চুরিয়নে দ্বিতীয় ম্যাচ।

ওয়ানডেতে রান তাড়া করতে নেমে কোহলির সেঞ্চুরিসংখ্যাই (২০) সর্বোচ্চ। এর মধ্যে তাঁর ১৮ সেঞ্চুরিতে দল জিতেছে! ডারবানে জেতার সুবাস পেয়ে তাই বোধ হয় নিজের জার্সি নম্বর ‘১৮’-কে দেখিয়ে সেঞ্চুরি উদ্‌যাপন করেছেন কোহলি। এ সেঞ্চুরিটি দিয়ে বিরল এক ‘সেট’ পূর্ণ করলেন ভারতীয় অধিনায়ক। ওয়ানডেতে এর আগে আটটি দলের মাটিতে সেঞ্চুরি ছিল কোহলির। দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে প্রথম সেঞ্চুরিটি দিয়ে তিনি ছুঁয়ে ফেললেন শচীন টেন্ডুলকার ও সনৎ জয়াসুরিয়ার রেকর্ডকে। ওয়ানডেতে আইসিসির নয়টি পূর্ণ সদস্য দেশের মাটিতে সেঞ্চুরি করেছিলেন শুধু টেন্ডুলকার ও জয়সুরিয়া।

টেন্ডুলকার ওয়েস্ট ইন্ডিজের মাটিতে সেঞ্চুরি পাননি। জয়সুরিয়াকে বঞ্চিত করেছে জিম্বাবুয়ের মাটি। কোহলির কিন্তু এ দুই কিংবদন্তিকে টপকে যাওয়ার সুযোগ থাকছে। কারণ ভারতীয় অধিনায়ক এখনো পাকিস্তানের মাটিতে খেলার সুযোগ পাননি। সুযোগ পেলে টেন্ডুলকার ও জয়সুরিয়াকে যে টপকে যাবেন, তাঁর দুর্দান্ত ফর্ম বিচারে সে কথা বলাই যায়।

ডারবানের তিন অঙ্ক দিয়ে ওয়ানডেতে ভারতীয় অধিনায়ক হিসেবে সৌরভ গাঙ্গুলির গড়া সর্বোচ্চ ১১ সেঞ্চুরির রেকর্ডও ছুঁয়ে ফেললেন কোহলি। আশ্চর্যের ব্যাপার হলো, অধিনায়ক হিসেবে ১১ সেঞ্চুরি করতে সৌরভের যেখানে খেলতে হয়েছে ১৪২ ইনিংস, সেই একই মাইলফলক ছুঁতে কোহলির লাগল মাত্র ৪১ ইনিংস!

আরও পড়ুনঃ   এক ঘণ্টার সাক্ষাৎকার দিতে আড়াই কোটি টাকা চাইলেন গেইল!

অধিনায়ক হিসেবে ৪৪ ওয়ানডেতে এ পর্যন্ত ৩৪ জয়ের মুখ দেখেছেন কোহলি। ওয়ানডেতে অধিনায়ক হিসেবে সর্বোচ্চসংখ্যক ম্যাচজয়ী(১৬৫) রিকি পন্টিং তাঁর প্রথম ৪৪ ম্যাচেও ৩৪ জয়ের মুখ দেখেছিলেন। এ ছাড়াও অবসরে যাননি এমন ক্রিকেটারদের মধ্যে তিন সংস্করণ মিলিয়ে কোহলি ও হাশিম আমলার সেঞ্চুরিসংখ্যাই সর্বোচ্চ ৫৪!

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

11 − 11 =