রাশিয়া বিমান বাহিনীতে যোগ হচ্ছে পারমাণবিক অস্ত্র বহলে সক্ষম অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সুপারসনিক যুদ্ধ বিমান টিইউ-১৬০ এম। এই বিমানটি আসার পর রাশিয়ার পারমাণবিক সক্ষমতা অনেকগুণ বেড়ে যাবে বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিন। গত বৃহস্পতিবার রাশিয়া ফেডারেশনের তাতারাস্তান প্রজাতন্ত্রের একটি কারখানায় এই বিমানটির প্রস্তুত কার্যক্রম পরিদর্শন করেন পুতিন।

বিশাল আকারের এই বিমানটি একসাথে ১২টি ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র কিংবা স্বল্প পাল্লার সমপরিমাণের পারমাণবিক ক্ষেপণাস্ত্র বহন করতে পারবে। কোনো বিরতি ছাড়াই উড়তে পারবে সাড়ে ৭ হাজার মাইল। প্রয়োজনে গতি বৃদ্ধির জন্য বিমনাটি তার পাখা দু’টিকে পেছনের দিকে গুঁজে রাখতে পারবে। স্নায়ুযুদ্ধ যুগের রুশ যুদ্ধ বিমানের একটি অত্যাধুনিক সংস্করণ এই বিমানটিকে মোতায়েন রাখা হয় পারমাণবিক যুদ্ধের জন্য।

২০২৭ সালের মধ্যে এই ধরনের ১০টি বিমান যুক্ত হবে রুশ যুদ্ধ বহরে। ন্যাটো যে বিমানটির কোড নাম দিয়েছে ব্ল্যাকজ্যাক। এই প্রকল্পে ব্যয় হলে ১৫ শ’ কোটি রুবল। পুতিন বলেন, ‘আমাদের উন্নত প্রযুক্তির যুদ্ধ ব্যবস্থা ও দেশের প্রতিরক্ষার পথে গুরুত্বপূর্ণ একটি পদক্ষেপ এটি।’ টিইউ-১৬০ বিমানটির বর্তমান যে সংস্করণটি রয়েছে সেটি সিরিয়া যুদ্ধে ব্যবহার করেছে রুশ বাহিনী। দেড় যুগ ধরে পুতিনের রাশিয়ার রাজনৈতিক পদক্ষেপ বেড়েছে বিশ্বব্যাপী বেড়েছে সামরিক সক্ষমতাও।

এই সময়ে জর্জিয়া, ইউক্রেন ও সিরিয়ায় সামরিক বাহিনী মোতায়েন করেছে মস্কো। বেড়েছে সামরিক ব্যয়ও। আগামী ১৮ মার্চ অনুষ্ঠিত দেশটির প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আবারো প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে যাচ্ছেন পুতিন। জনমত জরিপগুলো বলছে, বড় ব্যবধানে জয়ী হতে চলেছেন তিনি।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   মালদ্বীপের প্রধান বিচারপতিকে প্রাণনাশের হুমকি দেয়া হয়

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

eight − four =