দেশের ২২তম প্রধান বিচারপতি হিসেবে সুপ্রিম কোর্টের দ্বিতীয় জ্যেষ্ঠ বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে নিয়োগ দেয়ার পর রাষ্ট্রপতির কাছে পদত্যাগ পত্র পাঠিয়েছেন ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি (জ্যেষ্ঠ) আব্দুল ওয়াহহাব মিঞা। তাঁর দফতরের সব কাগজপত্র বাসায় নিয়ে আসা হচ্ছে। আদালত সূত্রে এতথ্য জানা গেছে। এর আগে আজ রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ সংবিধানের ৯৫ (১) অনুচ্ছেদের ক্ষমতাবলে সৈয়দ মাহমুদ হোসেনকে নতুন প্রধান বিচারপতি নিয়োগ দিয়েছেন। আগামীকাল শনিবার সন্ধ্যায় নতুন প্রধান বিচারপতির শপথ নেয়ার কথা রয়েছে। রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ শুক্রবার দুপুরে তার নিয়োগ আদেশে স্বাক্ষর করেছেন বলে জানিয়েছেন বঙ্গভবনের মুখপাত্র মো. জয়নাল আবেদীন। তিনি গণমাধ্যমকে বলেছেন, “আগামীকাল (শনিবার) সন্ধ্যা ৭টায় নতুন প্রধান বিচারপতিকে শপথ পড়াবেন রাষ্ট্রপতি।” ১৯৫৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর জন্ম নেয়া বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ৬৭ বছর পূর্ণ হওয়া পর্যন্ত প্রধান বিচারপতি পদে থাকবেন। সংবিধানের ৯৫ (১) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘প্রধান বিচারপতি রাষ্ট্রপতি কর্তৃক নিযুক্ত হইবেন এবং প্রধান বিচারপতির সহিত পরামর্শ করিয়া রাষ্ট্রপতি অন্যান্য বিচারককে নিয়োগদান করিবেন।’ রাষ্ট্রপতি নতুন প্রধান বিচারপতি পদে শুক্রবারই নিয়োগ দিচ্ছেন বলে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানানোর ঘণ্টাখানের মধ্যে এই খবর এল। নানা নাটকীয়তার মধ্যে বিচারপতি এসকে সিনহা গত নভেম্বরে পদত্যাগ করার পর থেকে বাংলাদেশের প্রধান বিচারপতির পদটি শূন্য। এর পর থেকে আপিল বিভাগের জ্যেষ্ঠ বিচারক মো. আবদুল ওয়াহহাব মিঞা ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। কিন্তু নতুন প্রধান বিচারপতি নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি হওয়ার পর তিনি রাষ্ট্রপতির কাছে পদত্যাগ পত্র পাঠান।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   এসকে সিনহা সংবিধান বিরোধী অবস্থান নিয়েছিলেন: অ্যাটর্নি জেনারেল

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

4 × 3 =