মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কাছে মোবাইল ফোনের সিমকার্ড বিক্রি করতে পারবে না দেশীয় কোনো মোবাইল ফোন অপারেটর। রোহিঙ্গাদের কাছে সিম বিক্রি করা হচ্ছে—এমন প্রমাণ পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট মোবাইল ফোন অপারেটরের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তবে যোগাযোগের জন্য আগামী তিন দিনের মধ্যে কক্সবাজারের সব রোহিঙ্গা শরণার্থীশিবিরে সরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকের ফোন বুথ স্থাপন করা হবে। এসব বুথ থেকে খুব কম খরচে মোবাইল ফোন দিয়ে স্থানীয় (লোকাল) কল করতে পারবেন আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গারা।

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কাছে মোবাইল সিমকার্ড বিক্রয় নিয়ন্ত্রণসংক্রান্ত এক সভায় আজ শনিবার এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। রমনায় বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) কার্যালয়ে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ, বিটিআরসি, মোবাইল ফোন অপারেটর, জাতীয় টেলিযোগাযোগ পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রসহ (এনটিএমসি) বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে সভার সিদ্ধান্তগুলো গণমাধ্যমে তুলে ধরে বক্তব্য দেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। তিনি বলেন, কিছু ব্যক্তি বাড়তি আয়ের লোভে নিজের নামে নিবন্ধিত সিমটি রোহিঙ্গাদের কাছে বিক্রি করছেন। এটি শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কোনো অপারেটর বা খুচরা বিক্রেতা যদি এ ক্ষেত্রে অসাধু উপায় অবলম্বন করে, তাহলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ জন্য আগামী কয়েক দিনের মধ্যে ভ্রাম্যমাণ আদালত দিয়ে শরণার্থীশিবিরগুলোয় অভিযান চালানো হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হকসহ সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

3 × 5 =