যুক্তরাষ্ট্রের ১৮ লাখ অবৈধ তরুণ অভিবাসীকে ভিসা দেবার পরিকল্পনা করছে ট্রাম্প প্রশাসন। তবে এই পরিকল্পনা প্রস্তাবের সঙ্গে একটি লেজ জুড়ে দিয়েছে। তা হল নাগরিকত্ব দেবার পরিকল্পনা অনুমোদনের বিনিময়ে মেক্সিকো সীমান্তে প্রাচীর নির্মাণের পরিকল্পনাটিকেও অনুমোদন দিতে হবে। যার নির্মাণে বরাদ্দ করতে হবে আড়াই হাজার কোটি টাকার তহবিল। বার্তা সংস্তা এপি’র বরাতে এ খবর দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের প্রভাবশালী দৈনিক নিউ ইয়র্ক টাইমস। ট্রাম্পের এই পরিকল্পনাকে স্বাগত জানিয়েছেন কিছু কংগ্রেস সদস্য।

তবে রক্ষণশীল সক্রিয়তাবাদীরা একে ‘রাজক্ষমা’ বা ব্যাপক আকারের ছাড় বলে অভিহিত করছেন। এ পরিকল্পনার বিরোধিতা করছেন ডেমোক্রাটদের একটি অংশও। অভিযোগ করছেন, অভিবাসীদের নাগরিকত্বের প্রশ্নে জিম্মি রেখে নিজের পরিকল্পিত সীমান্ত প্রাচীর নির্মাণের সিদ্ধান্ত পাশ করিয়ে নিতে চাইছেন ট্রাম্প। সোমবার এ সংক্রান্ত প্রস্তাব পেশ করার কথা রয়েছে। যদিও আগে থেকেই ওই দেয়াল নির্মাণের বিরোধিতা করে আসছে ডেমোক্রেটরা। আর অর্থ জোগানের ব্যাপারেও তারা একমতে পৌঁছাতে পারেননি। বৃহস্পতিবার এক সম্মেলনে এই প্রস্তাবটির বিস্তারিত জানান যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের অভিবাসন-সংক্রান্ত জ্যেষ্ঠ উপদেষ্টা স্টিফেন মিলার। তিনি জানান, ১৮ লাখ মানুষকে ১০ থেকে ১২ বছরের মধ্যে নাগরিকত্ব দেয়ার পরিকল্পনা করা হচ্ছে। এই পরিকল্পনার মধ্যে সাত লাখ অভিবাসীকে নাগরিকত্ব দেয়া হবে, যারা ডিফারেড অ্যাকশন ফর চাইল্ডহুড অ্যারাইভালসের (ডিএসিএ) আওতায় রয়েছেন। বিভিন্ন দেশ থেকে যেসব শিশু অবৈধভাবে যুক্তরাষ্ট্রে এসেছে, তারাই এর আওতাভুক্ত হবে। এ ছাড়া বাকি ১১ লাখ অভিবাসী রয়েছেন, যারা এখনো নিবন্ধিত হননি, তাদেরও নাগরিকত্ব দেয়া হবে। ট্রাম্প প্রশাসন আরো দুটি পরিকল্পনা নিয়েছে। তা হলো, পারিবারিকভাবে অভিবাসন ও লটারির (যা ডিভি ভিসা নামে পরিচিত) মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্রে লোক নেয়া বন্ধ করে দেয়া ।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   সঙ্কট সমাধানে মিয়ানমারকে সহায়তার প্রস্তাব জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

18 − 14 =