আসন্ন সিরিজে প্রধান কোচের অনুপস্থিতিতে বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব সামলাবেন সহকারী ও ফিল্ডিং কোচ রিচার্ড হ্যালসাল। আর সিরিজ সামনে রেখে শ্রীলঙ্কার চেয়ে এ মুহূর্তে বাংলাদেশকেই এগিয়ে রাখলেন তিনি। তার এমন ভাবনার পেছনে পরিষ্কার ব্যাখ্যাও দিলেন হ্যালসাল। আগামী ১৫ই জানুয়ারি মাঠে গড়াচ্ছে বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা-জিম্বাবুয়ের অংশগ্রহণে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ। পরে সফরকারী শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই টেস্ট ও দুই টি-টোয়েন্টি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা।  সিরিজের জন্য গত ২৭শে ডিসেম্বর থেকে মিরপুর শেরেবাংলা মাঠে অনুশীলন শুরু করেছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল। যদিও গতকালই প্রথমবার দলের সঙ্গে যোগ দেন জিম্বাবুইয়ান কোচ রিচার্ড হ্যালসাল।

আর গতকাল মিরপুরে রিচার্ড হ্যালসাল বলেন, ‘দেখুন আমরা শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে খেলতে যাচ্ছি যারা কিছুদিন আগে ভারতে কঠিন সময় পার করেছে। সেখানে তারা খুব বাজেভাবে হেরেছে। ওই সিরিজের পর ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি তারা। শ্রীলঙ্কা ভালো দল। তবে তারা কি করতে পারে সেই সম্পর্কে আমরা জানি। অন্যদিকে আমরা মিরপুরে খেলছি। শেষ তিন বছরে ইংলিশরা বাদে আমাদের এখানে সফরকারী কোনো দল সিরিজ জিততে পারেনি। আসন্ন সিরিজে দুই দলের তুলনায় বাংলাদেশ বেশ ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল।’ নিজ মাটিতে  বাংলাদেশের সাম্প্রতিক নৈপুণ্যটা উজ্জ্বল। গত বছর যদিও দেশের মাটিতে কোনো ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে পারেনি বাংলাদেশ। ২০১৬’র অক্টোবরের পর দেশের মাটিতে টাইগারদের এটি প্রথম সিরিজ। দক্ষিণ আফ্রিকা সফরকালে গত অক্টোবরে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডেকে (বিসিবি) পদত্যাগপত্র দেন প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। পরে কোচের দায়িত্ব নেন নিজ শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট দলের। রিচার্ড হ্যালসাল বলেন, ‘আমাদের প্রধান কোচ চলে গিয়েছে। বড় খেলোয়াড় যাওয়ার চেয়ে কোচ যাওয়া কম গুরুত্বপূর্ণ। বাংলাদেশের কোনো বড় খেলোয়াড় কিংবা তরুণ কোনো খেলোয়াড় চলে যায়নি। কোচ গিয়েছে। বাংলাদেশ আর শ্রীলঙ্কার বিষয়টি ভিন্ন। শ্রীলঙ্কা বেশ কিছু বড় খেলোয়াড়কে হারিয়েছে যেমন- লাসিথ মালিঙ্গা তাদের দলে নেই। আমাদের এ ধরনের কোনো সমস্যা নেই। তাই বাংলাদেশ বেশ ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল।’
নিজের বাড়তি দায়িত্ব প্রসঙ্গে
চন্ডিকা হাথুরুসিংহের বিদায়ে আসন্ন সিরিজে টাইগারদের প্রধান কোচের দায়িত্ব সামলাবেন রিচার্ড হ্যালসালই। তবে এটাকে বাড়তি চাপ হিসেবে দেখছেন না তিনি। হ্যালসাল বলেন,  আমার আগের দায়িত্বের সঙ্গে এর পার্থক্য দেখছি না।  দলের কোচিংটা দেখাই আমার কাজ। এবারো তাই করছি। দলের একজন সাপোর্ট স্টাফ হিসেবে বাংলাদেশ দলের জয় পেতে সম্ভাব্য সবই করি আমি। সবাই তা-ই চায়। তাই নামের পাশে আপনি যে পদবী-ই জুড়ে দেন না কেন, এতে পার্থক্য নেই। সবাই বাংলাদেশের জয় দেখতে চায়। প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ও আকর্ষণীয় ক্রিকেট দেখতে চায়। দলের এমনটা নিশ্চিত করতে চাই আমি, এটাই আমার কাজ।
হাথুরুর মুখোমুখি হওয়া প্রসঙ্গে
আসন্ন সিরিজে শ্রীলঙ্কা দলের দায়িত্ব সামলাচ্ছেন বাংলাদেশের বিদায়ী প্রধান কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। আর রিচার্ড হ্যালসাল বলেন, আমরা তার (হাথুরুসিংহে) বিপক্ষে নয়, শ্রীলঙ্কার খেলোয়াড়দের বিপক্ষে খেলতে নামছি। আর কৌশল ও পরিকল্পনাটা খেলোয়াড়দের জন্য ছোট অংশবিশেষ। ভালো খেলোয়াড়রা মাঠে আপনাকে জয় এনে দেয়। দলের ভালো খেলোয়াড়রা নৈপুণ্য দেখালে আপনি জয় পাবেন। আমাদের দলে ভালো খেলোয়াড় রয়েছে অনেক। তবে তারা দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে ভালো খেলতে পারেনি। কিন্তু চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে তাদের ভালো খেলতে দেখেছি আমরা। বিশেষ করে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ম্যাচে। আর এবার  নিজ মাটিতে খেলার সুবিধা থাকছেই।
টাইগারদের জন্য এবারের মন্ত্র
হ্যালসাল বলেন, দলের খেলোয়াড়দের ভালো দিকগুলো মনে করিয়ে দিচ্ছি আমি। দক্ষিণ আফ্রিকার মতো কঠিন কন্ডিশনে আপনি সমস্যায় পড়তেই পারেন। তবে আপনার সামর্থ্য ও শক্তির বিষয় মনে রাখতে হবে আপনাকে। আমি তাদের বলেছি, আমাদের দলে দারুণ ক্রিকেটাররা রয়েছে। এবং নিজের সামর্থ্যে বিশ্বাস রাখতে হবে তাদের। একজন ইংলিশ, অস্ট্রেলিয়ান বা প্রোটিয়া ক্রিকেটারের মতো খেলতে হবে না, বাংলাদেশি খেলোয়াড়ের মতোই নৈপুণ্য দেখাবে তারা। মাঠে স্বাধীনতা নিয়ে যখন তারা খেলে তখন তারা একটা দারুণ দল হয়ে ওঠে।
আগামী ১০ই জানুয়ারি পর্যন্ত অনুশীলন করবে বাংলাদেশ দল।  ৬ ও ৯ই জানুয়ারি দুটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবে টাইগাররা। ৩২ জনের প্রাথমিক দলের ক্রিকেটাররা ভাগাভাগি হয়ে প্রস্তুতি ম্যাচ খেলবেন।
১৫ই জানুয়ারি বাংলাদেশ-জিম্বাবুয়ে ম্যাচ দিয়ে মাঠে গড়াবে ত্রিদেশীয় ওয়ানডে সিরিজ।

আরও পড়ুনঃ   গার্ডিয়ানের বর্ষসেরা একাদশে সাকিব-মুশফিক

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

six − 3 =