বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধে ভালোভাবে সাড়া দিচ্ছে ফেসবুক। ফেসবুকের কাছে এ বছরের প্রথম ছয় মাসে ৪৪টি অ্যাকাউন্টের তথ্য চেয়েছিল সরকার। বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধের ক্ষেত্রে ৪৫ শতাংশ তথ্য সরবরাহ করেছে ফেসবুকের কর্তৃপক্ষ। মোট ২১টি অ্যাকাউন্ট নিয়ে ব্যবস্থা নিয়েছে ফেসবুক। ১৮ ডিসেম্বর প্রকাশিত ফেসবুকের ট্রান্সপারেন্সি প্রতিবেদনে এ তথ্য প্রকাশ করা হয়েছে।

ফেসবুক প্রতি ছয় মাস পরপর এ প্রতিবেদন প্রকাশ করে। এতে কোন দেশের সরকার ফেসবুকের কাছে কী ধরনের অনুরোধ জানায়, তা তুলে ধরা হয়। তবে কোন অ্যাকাউন্টের তথ্য চাওয়া হয়, তা উল্লেখ করা হয় না।

এ বছরের প্রতিবেদনে দেখা গেছে, সরকারের পক্ষ থেকে ৪৪টি অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত যে অনুরোধ করা হয়েছে তার মধ্যে কনটেন্ট বন্ধ করার অনুরোধ নেই। ১০টি অ্যাকাউন্টের প্রিজার্ভেশন বা সংরক্ষণের অনুরোধ করা হয়েছে ব্যবহারকারী বা অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত তথ্য চাওয়া হয়েছে ১১টির। ফেসবুকের কাছে যে অনুরোধ গেছে, তার মধ্যে আইনি প্রক্রিয়ায় ২০টি অনুরোধে ২১ জন ব্যবহারকারী সম্পর্কে তথ্য চাওয়া হয়েছে। ফেসবুক এ ক্ষেত্রে ১৮ দশমিক ৬০ শতাংশ তথ্য সরবরাহ করেছে।

জরুরি হিসেবে ফেসবুকের কাছে সরকারের পক্ষ থেকে ২৪টি অনুরোধে ২৩টি অ্যাকাউন্টের তথ্য চাওয়া হয়েছে। ফেসবুক এ ক্ষেত্রে ৬৭ শতাংশ তথ্য সরবরাহ করেছে।

এর আগে ২০১৬ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর মাসের তথ্য ২৭ এপ্রিল প্রকাশ করে ফেসবুক। ফেসবুকের কাছে গত বছরের শেষ ছয় মাসে ৪৯টি অনুরোধ করেছিল বাংলাদেশ সরকার । এতে ৫৭টি অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত তথ্য চাওয়া হয়েছিল। বাংলাদেশ সরকারের অনুরোধের ক্ষেত্রে ২৪ দশমিক ৪৯ শতাংশ তথ্য দিয়েছিল ফেসবুক।

গত বছরের জানুয়ারি থেকে জুন মাস পর্যন্ত তথ্য নিয়ে ২১ ডিসেম্বর ফেসবুক প্রকাশিত ‘গ্লোবাল গভর্নমেন্ট রিকোয়েস্টস রিপোর্ট’-এ বলা হয়, ওই সময়ের মধ্যে বাংলাদেশ থেকে ৯টি অ্যাকাউন্টের ব্যাপারে ১০টি অনুরোধ করা হয়েছিল। অর্থাৎ ২০১৬ সালে ফেসবুকের কাছে বাংলাদেশের সরকারের পক্ষ থেকে মোট ৫৯টি অনুরোধ করা হয়েছিল।

আরও পড়ুনঃ   ‘রবার্ট জোয়েলিক অপদার্থ, বদমায়েশ ও অত্যন্ত বাজে লোক’ : অর্থমন্ত্রী

২০১৬ সালের এপ্রিল মাসে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে ব্যবহারকারীর তথ্য চেয়ে করা অনুরোধে সাড়া দেয় ফেসবুক কর্তৃপক্ষ। ২০১৫ সালের জুলাই থেকে ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত তথ্য নিয়ে ওই বছরের ২৮ এপ্রিল ফেসবুক ওই প্রতিবেদন প্রকাশ করে।

ফেসবুক কর্তৃপক্ষ বলছে, এ বছরের প্রথমার্ধে বিভিন্ন দেশের সরকারের কাছ থেকে তথ্য চাওয়ার হার বেড়েছে। বিশ্বজুড়ে তথ্য চাওয়ার হার ২১ শতাংশ বেড়েছে। ২০১৬ সালের শেষ ছয় মাসে বিশ্বজুড়ে সরকারগুলোর কাছ থেকে ৬৪ হাজার ২৭৯টি অনুরোধ পেয়েছিল ফেসবুক, যা এবারে দাঁড়িয়েছে ৭৮ হাজার ৮৯০টিতে।

তবে এটা একেবারে নতুন ট্রেন্ড বলা যাবে না। ২০১৩ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ফেসবুক, গুগল ও টুইটার সরকারের কাছ থেকে অনুরোধ বেড়ে যাওয়ার হার বুঝতে পারে। গত বছর অ্যাপলের কাছেও অনুরোধ বেড়েছে।

সময় অনুরোধ সংখ্যা তথ্য দেওয়ার হার
জুলাই–ডিসেম্বর ২০১৫ ১২ ১৬.৬৭%
জানুয়ারি–জুন ২০১৬ ১০ ২০%
জুলাই–ডিসেম্বর ২০১৬ ৫৭ ২৪.৪৯%
জানুয়ারি–জুন ২০১৭ ৪৪ ৪৫%

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

12 − 5 =