সহনীয় পর্যায়ে ঘুষ খাওয়ার কথা বলায় এবং সব মন্ত্রী ঘুষ খায়- এমন মন্তব্য করায় শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদকে সব মন্ত্রীর কাছে ক্ষমা চাওয়ার অনুরোধ এবং এ বিষয়ে সংসদে বিবৃতির দাবি জানিয়েছেন ঝিনাইদহ-২ আসনের স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য তাহজীব আলম সিদ্দিকী।

একইসাথে তিনি এ ধরনের মন্তব্যের জন্য শিক্ষামন্ত্রীর পদত্যাগও দাবি করেন। মঙ্গলবার জাতীয় সংসদে এক অনির্ধারিত আলোচনায় অংশ নিয়ে তিনি এ দাবি জানান।

সম্প্রতি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে বিভিন্ন বিষয়ে যারা প্রতিবেদন দেন সেই কর্মকর্তাদের ‘সহনশীল মাত্রা’য় ঘুষ খেতে শিক্ষামন্ত্রীর পরামর্শ দেয়ার খবর বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়। পরে সংবাদ সম্মেলন করে এই খবর তার বক্তব্যের ভুল বোঝাবুঝির উপস্থাপন বলে দাবি করেন শিক্ষামন্ত্রী।

তাহজীব আলম বলেন, শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন সহনীয় পর্যায়ে ঘুষ খান। আপনাদের ঘুষ না খাওয়ার নৈতিক সাহস আমার নেই। কারণ আমি ঘুষ খাই। মন্ত্রীরা ঘুষ খান। তিনি বলেন, সব মন্ত্রী বিশেষ করে যারা স্বচ্ছতা ও শততার সঙ্গে সব বিতর্কের ঊর্ধ্বে কাজ করে যাচ্ছেন এই সংসদে দাঁড়িয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে তাদের কাছ নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার অনুরোধ করছি, আবেদন করছি, নিবেদন জানাচ্ছি।

তাহজীব বলেন, শিক্ষামন্ত্রীকে তার বক্তব্যের ব্যাপারে সংসদে ব্যাখ্যা দিতে হবে। আর সত্যি সত্যি তিনি যদি আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ হন তাহলে সমগ্র সরকারকে জনগণের কাছে বিতর্কিত না করে তার উচিত নিজ পদ থেকে নিজেকে প্রত্যাহার করে সেয়া। নিশ্চয় একটি সফল সরকারের ভাবমূর্তি তার বক্তব্যে ভুলণ্ঠিত হতে পারে না। যারা নির্বাহী দায়িত্বে আছেন তারা অবশ্যই বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে উপলব্ধি করবেন।

এরপর কুমিল্লার জাতীয় পার্টির এমপি নূরুল ইসলাম মিলন শিক্ষাব্যবস্থার সমালোচনা করে বলেন, আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা এমন একপর্যায়ে এসে দাঁড়িয়েছে সেটা অত্যন্ত দুঃখজনক। তিনি প্রাথমিক সমাপনী ও জেএসসি পরীক্ষার নেয়ার বিরোধিতা করে বলেন, এর প্রয়োজন ছিল না। এর ফলে দুর্নীতি বাড়ে। শিক্ষকরা আজকে প্রশ্নপত্র ফাঁস করেন।

আরও পড়ুনঃ   স্কুলে ছাত্রলীগের রাজনীতি, প্রথম বলি মেধাবী ছাত্র আদনান

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

16 + six =