নিজেদের সর্বোচ্চ স্কোর গড়ে দুই টুয়েন্টি টুয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে সফরকারী শ্রীলংকার কাছে ৬ উইকেটে হারের স্বাদ পেতে হয়েছে স্বাগতিক বাংলাদেশকে। তাই সিরিজে ১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে টাইগাররা। সিরিজ হার এড়াতে হলে দ্বিতীয় ও শেষ টি-২০ ম্যাচে জিততেই হবে বাংলাদেশকে। আগামীকাল সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হবে এই টি-২০টি। এই ভেন্যুতে প্রথমবারের মত খেলতে নামছে বাংলাদেশ। বলতে গেলে, সিলেটের মাটিতে আন্তর্জাতিক অঙ্গনে অভিষেক হচ্ছে টাইগারদের। তাই সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টি-২০ জিতে সিরিজ হার এড়ানোর পাশাপাশি নিজেদের অভিষেক ম্যাচ স্মরণীয় করে রাখাই লক্ষ্য হবে বাংলাদেশের। পক্ষান্তরে ত্রিদেশীয় ও টেস্ট জয়ের পর টি-২০ সিরিজও জিততে মরিয়া থাকবে শ্রীলংকা। বিকেল পাঁচটায় শুরু হবে সিরিজের শেষ ম্যাচটি।
ত্রিদেশীয় সিরিজের দুর্দান্ত শুরুর পরও রানার-আপ হয়ে সন্তুষ্ট থাকতে হয় বাংলাদেশকে। একইভাবে টেস্ট সিরিজেও শুরুটা ভালো ছিলো টাইগারদের। ব্যাটসম্যানদের দৃঢ়তায় চট্টগ্রামে সিরিজের প্রথম ম্যাচ ড্র করে বাংলাদেশ। তবে দ্বিতীয় ম্যাচে লজ্জার হার বরণ করে সিরিজ হেরে বসে টাইগাররা। ত্রিদেশীয় ও টেস্ট সিরিজ হারের দুঃস্মৃতিকে সঙ্গী করে দুই ম্যাচের টি-২০ লড়াই শুরু করে বাংলাদেশ।
মিরপুরে সিরিজের প্রথম ম্যাচে শুরুটা দুর্দান্ত ছিলো বাংলাদেশের। সাবেক অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম ও সৌম্য সরকারের জোড়া হাফ-সেঞ্চুরিতে ২০ ওভারে ৫ উইকেটে ১৯৩ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। টি-২০ ফরম্যাটে টাইগারদের সর্বোচ্চ দলীয় রানের রেকর্ড এটি। রেকর্ড গড়া ম্যাচে মুশফিকুর অপরাজিত ৬৬ ও সৌম্য ৫১ রান করেন।
বাংলাদেশের ছুঁড়ে দেয়া বড় টার্গেট হেসেখেলেই টপকে যায় শ্রীলংকা। ওপেনার কুশল মেন্ডিসের ৫৩, দাসুন শানাকার অপরাজিত ৪২ ও থিসারা পেরেরার অপরাজিত ৩৯ রানে ২০ বল হাতে রেখেই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে শ্রীলংকা। ফলে সিরিজে ১-০ ব্যবধানে লিড নেয় তারা।
সিরিজ হার এড়াতে হলে দ্বিতীয় ম্যাচে জিততেই হবে বাংলাদেশকে। তবে কাজটি কঠিনই হবে তাদের। কারন সিলেটের ভেন্যুতে প্রথমবারের মত খেলতে নামছে বাংলাদেশ। এই ভেন্যুতে আগে কখনোই আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেনি টাইগাররা। তারপরও সাহস যোগানোর রসদ রয়েছে বাংলাদেশের। কারন গত নভেম্বরে এই্ ভেন্যুতেই বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ ক্রিকেটে বিভিন্ন ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়ে বেশক’টি ম্যাচ খেলে গেছে বাংলাদেশের খেলোয়াড়রা। সেই অভিজ্ঞতা শ্রীলংকার বিপক্ষে কতটা কাজে লাগাতে পারে বাংলাদেশ, সেটি এখন দেখার বিষয়।
বাংলাদেশ দল : মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ (অধিনায়ক), তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, মুশফিকুর রহিম, সাব্বির রহমান, মুস্তাফিজুর রহমান, রুবেল হোসেন, মোহাম্মদ সাইফউদ্দিন, আবু হায়দার রনি, আবু জায়েদ রাহি, নাজমুল ইসলাম অপু, আরিফুল হক, মেহেদি হাসান, আফিফ হোসেন ও জাকির হাসান।
শ্রীলংকা দল : দিনেশ চান্ডিমাল (অধিনায়ক), উপুল থারাঙ্গা, দানুস্কা গুনাথিলাকা, কুশল মেন্ডিস, থিসারা পেরেরা, আসলে গুনারতেœ, নিরোশান ডিকবেলা, দাসুন শানাকা, ইসুরু উদানা, শেহান মাদুশঙ্কা, জেফরি ভান্দারসে, আকিলা ধনঞ্জয়া, আমিলা আপোনসো, জীবন মেন্ডিস ও আসিথা ফার্নান্দো।

আরও পড়ুনঃ   ফিরে গেলেন সাকিব

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

2 × 2 =