চট্টগ্রাম টেস্টে আরও একটা যন্ত্রণাময় সেশন গেল বাংলাদেশের দলের। চতুর্থ দিনে মধ্যাহ্ন বিরতিতে যাওয়ার আগে বাজে বোলিং-ফিল্ডিংয়ের প্রদর্শনীতে শ্রীলঙ্কার মাত্র একটা উইকেটে নিতে পেরেছেন বাংলাদেশের বোলাররা। দিতে হয়েছে ১০৮ রান। তাইজুল-মিরাজদের যন্ত্রণাটা স্পর্শ করল হয়তো শিল্পীকেও।

শিল্পীর কণ্ঠ থেকে বেরোল যাতনার গীতি, ‘…এই জ্বালা আর প্রাণে সয় না’! লাকী আখান্দের বিখ্যাত গানটা কণ্ঠে ধরেছেন ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম টেস্ট কাভার করতে আসা ক্রীড়া সাংবাদিক মোসতাকিম হোসেন। গত দুই দিন বাংলাদেশের বোলারদের ভুগিয়ে শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যানরা যেভাবে দাপট দেখাচ্ছেন, টিভি সাংবাদিকেরা পাচ্ছেন না দর্শককে দেখানোর মতো ‘বাইট’, পত্রিকা-অনলাইনের প্রতিবেদকেরা খুঁজে পাচ্ছেন না খবরের ‘অ্যাঙ্গেল’। মাঠে খেলোয়াড়দের মতো প্রেসবক্সেও ‘কঠিন’ দিন পার করতে হচ্ছে বাংলাদেশের সাংবাদিকদের।
কঠিন সময়টার গায়ে একটু রং চড়াতে, ঝিম ধরে থাকা মুহূর্ত একটু চাঙা করতে প্রেসবক্সে গিটার নিয়ে এসেছেন এটিএন বাংলার প্রতিবেদক আশরাফুল আলম। বাংলাদেশ যখন ভালো খেলে, একটার পর একটা ঘটনা ঘটে, কি-বোর্ডে ঝড় ওঠে—অথচ গত দুটি দিন ভিন্ন ছবি। শ্রীলঙ্কার ব্যাটসম্যানদের দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে প্রেসবক্সটাও কেমন ঝিমিয়ে পড়েছে! মাঠে উত্তেজনা নেই, লেখার রসদ কম সাংবাদিকদের।
ম্যাচ শেষে দুই দলের সংবাদ সম্মেলনটাই যা ভরসা। তাতে তো আর অফিসকে সন্তুষ্ট করা যায় না।
খবর–সংকটে অলস প্রেসবক্স তাই গিটারের টুং টাং শব্দে খানিকটা চনমনে হয়, বেদনার গান গেয়ে সাংবাদিক কাম শিল্পীর হৃদয়টাও হালকা হয়। হালকা হন সম্প্রচার কর্তৃপক্ষের প্রোডাকশন ব্যবস্থাপক মিঠুন ঘোষও। তিনি অবশ্য অলস সময়টা কাটাচ্ছেন ছবি এঁকে! সকালে টিভিতে বেশ কয়েকবার দেখাল তাঁর শিল্পকর্ম। শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যানরা ধুমসে রান তুলছেন আর সফরকারীদের ড্রেসিংরুমের সিঁড়ির পাশে স্কেচ করছেন মিঠুন। টিভি ক্যামেরা তাঁর শিল্পকর্ম ধারণ করতে গেলে খানিকটা লজ্জাই পেলেন! ধারাভাষ্যকরদের কৌতূহলী জিজ্ঞাসা, ‘সুন্দর ছবি আঁকছেন কিন্তু দেখাতে চাইছেন না কেন?’
কাজটা শেষ না করার আগে স্কেচ মিঠুন দেখাতে চাননি। পরে টিভিতেই দেখা গেল তিনি এঁকেছেন রূপসী এক নারী আর এক প্রবীণের ছবি। লাঞ্চ বিরতিতে প্রোডাকশন রুমে খেতে খেতে মিঠুন বলছিলেন তাঁর ছবির গল্প। কিন্তু ছবির নারীটা কে? লাজুক ভঙ্গিতে বললেন, ‘মানুষটা কাল্পনিক।’ পাশ থেকে তাঁর সহকর্মীর জোর আপত্তি, ‘ওটা ওর প্রেমিকা! প্রেমে পড়ার পর থেকেই ও শুধু ছবি আঁকছে!’ লজ্জায় পালিয়ে বাঁচতে চান ভারতের পশ্চিমবঙ্গ থেকে আসা মিঠুন, ‘আরে না, মজা করছে! আমি অনেক আগে থেকেই ছবি আঁকি। আমার বাসায় নিজের আঁকা অনেক পেইন্টিং আছে। তেলচিত্র, জলরং সব ছবিই আছে।’

আরও পড়ুনঃ   কোহলির খাবারের তালিকায় কি কি থাকে জানেন?

গায়ক না হয় গান গেয়ে, শিল্পী ছবি এঁকে যন্ত্রণা ভুলতে পারেন। চট্টগ্রাম টেস্টে শ্রীলঙ্কা যে দাগাটা দিচ্ছে, বাংলাদেশ সেটি ভুলবে কী করে?

উত্তরটাও অজানা নয়। শ্রীলঙ্কা যতটা ভালো খেলেছে, বাকি সেশনগুলোয় সেটির চেয়ে ভালো খেলতে হবে বাংলাদেশকে। তাহলে হয়তো চট্টগ্রাম টেস্টটা বাঁচাতে পারবেন মাহমুদউল্লাহরা।

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

17 + 1 =