বার্সেলোনার বিপক্ষে আসন্ন চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শেষ ষোলর ম্যাচকে সামনে রেখে নিজেদের বেশ ভাল করেই ঝালিয়ে নিয়েছে চেলসি। শুক্রবার লীগ কাপের ৫ম রাউন্ডের ম্যাচে হাল সিটিকে ৪-০ গোলে হারিয়ে টুর্নামেন্টের কোয়ার্টার ফাইনাল নিশ্চিত করেছে এন্টনিও কন্টের শিষ্যরা।
উইলিয়ানের দারুণ নৈপুণ্যে প্রেরণামূলক এই জয়টি ঘরে তুলে প্রিমিয়ার লীগে ধুঁকতে থাকা বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা। তার জোড়া গোলের সুবাদে বড় ব্যবধানের জয় নিশ্চিত হয় ব্লুজদের। দলের হয়ে বাকী গোল দু’টি করেছেন পেড্রো রড্রিগুয়েজ ও অলিভার গিরুদ। ম্যাচের প্রথমার্ধেই চারটি গোল করে চেলসি।
স্প্যানিশ জায়ান্ট বার্সেলোনার বিপক্ষে চ্যাম্পিয়ন্স লীগের আসন্ন ম্যাচকে সামনে রেখে দলীয় শক্তি অটুট রাখার মানষে এদিন বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন দিয়ে স্কোয়াড সাজিয়েছিলেন কন্টে। একাদশের বাইরে রাখেন থিবাউট কোর্টুইজ, চেজার আজপিলিকুয়েটা, এনগোলে কান্টে ও এডেন হ্যাজার্ডকে। আগামী মঙ্গলবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগে বার্সার মুখোমুখি হবে দলটি।
চেলসি কোচ বলেন, ‘বার্সেলোনার বিপক্ষে আসন্ন গুরুত্বপুর্ন ম্যাচকে সামনে রেখে আমি নানা রকম সন্দেহ মনের মধ্যে পুষে রেখে ঘরে ফিরছিলাম। বার্সেলোনার বিপক্ষে সেরা একাদশ নিয়ে ভাবছিলাম।
তবে এখন আমি সঠিক পথটি পেয়ে গেছি। সময়মতই আমরা সঠিক দলটি পেয়ে গেছি। আসন্ন ম্যাচে আমরা একাদশ গড়ার সময় অবশ্যই সেরা সিদ্ধান্ত নিতে পারবো।’
চ্যাম্পিয়ন্স লীগে কাতালান জায়ান্টরদের সঙ্গে দুই লেগের ম্যাচে অংশগ্রহণের পর চেলসিকে প্রিমিয়ার লীগে লড়তে হবে পয়েন্ট টেবিলের দুই শীর্ষ পয়েন্টধারী ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড ও ম্যানচেস্টার সিটির সঙ্গে। যদিও শিরোপা স্বপ্ন ফিকে হয়ে গেছে চেলসির জন্য। এখন দলটি লড়ছে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষ চারে জায়গা করে নেয়ার জন্য।
কন্টে মনে করেন গত সোমবার ওয়েস্টব্রুমের বিপক্ষে ৩-০ গোলের জয়টি তাদের আত্মবিশ্বাস ফিরিয়ে দিয়েছে। শুক্রবারের জয়ে তারা বার্সাকে হারানোর মত মনোবল পেয়ে গেছে। এর আগে গত সপ্তাহে রবার্নমাউথ ও ওয়াটফোর্ডের কাছে পরপর দু’টি হার চেলসির মনোবলকে একেবারেই শূন্যের কোটায় নামিয়ে দিয়েছিল।
চেলসির ইতালীয় কোচ বলেন,‘ এখন আমরা অসাধারণ একটি ম্যাচের কথা বলতে পারি। কারণ আমরা বেশ আত্মবিশ্বাসী। বার্সেলোনা যে বিশ্বের শ্রেষ্ঠ দলগুলোর একটি সে বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই। একদিকে যেমন দলটির মোকাবেলার জন্য আপনার প্রস্তুতি নিতে হবে, অন্য দিকে ম্যাচটিকে ঘিরে আপনার মধ্যে তীব্র উত্তেজনা কাজ করবে।
আপনাকে অবশ্যই তাদের পর্যায়ের মান বজায় রেখেই লড়ার চেস্টা করতে হবে। বিষয়টি এত সহজ নয় ঠিক, তবে আমরা সঠিক সময়েই আত্মবিশ্বাস ফিরে পেয়েছি। এখন দেখা যাক কি হয়।’
ম্যাচের ২য় মিনিটেই গোল করে চেলসিকে লীড এনে দেন উইলিয়ান (১-০)। ২৭তম মিনিটে পেড্রো গোল করে দ্বিগুন ব্যবধানে পৌঁছে দেন চেলসিকে (২-০)। চার মিনিট পর নিজের দ্বিতীয় গোলটি করেন ব্রাজিলীয় উইঙ্গার (৩-০)। বিরতীতে যাবার ৩ মিনিট আগে গিরুদ ক্লাবের হয়ে প্রথম গোলের দেখা পেলে ৪-০ গোলের বিশাল লীড নিশ্চিত হয় প্রিমিয়ার লীগ চ্যাম্পিয়নদের।
খেলা শেষে উইলিয়ান বলেন, ‘ম্যাচে হ্যাটট্রিকের ভালই সুযোগ ছিল। আমি চেষ্টাও করেছি। তবে জয় পাওয়াটাই হচ্ছে আমার কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। বাজে একটি সময় কাটানোর পর আমরা আবার জয়ের ধারায় ফিরতে পেরেছি। আপনি যখন জয় পেতে শুরু করবেন তখন আত্মবিশ্বাস হয়ে যাবে আকাশচুম্বি। এখন আমাদেরকে সেটি ধরে রাখতে হবে।’
এদিকে গত মাসে আর্সেনাল থেকে চেলসিতে যোগ দিয়ে একটি সঠিক সুচনা করেছেন গিরুদ। নতুন ক্লাবে এটি তার প্রথম গোল। বলেন, ‘আমি এটির জন্য অপেক্ষা করছিলাম। আগের ম্যাচেও কয়েকটি সুযোগ পেয়েছি। যে কারণে প্রথম গোলটি আমার কাছে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই গোলটি আমাকে কিছুটা ভারমুক্ত করেছে।’

আরও পড়ুনঃ   একটি হোয়াইটওয়াশ আর মাশরাফির দুঃখ

Comments

comments

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

9 − one =