১৮ বছরের নিচে কারও কাছে বিড়ি-সিগারেট বিক্রি করব না—এই স্লোগানে কুড়িগ্রামে ধূমপানবিরোধী ব্যতিক্রমী অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে জেলা প্রশাসন। এ উপলক্ষে গতকাল বৃহস্পতিবার সমাবেশ ও শোভাযাত্রা হয়। শোভাযাত্রা শেষে দোকানে দোকানে গিয়ে ধূমপানবিরোধী স্টিকার লাগানো হয়।

সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে কিশোর ও যুবকদের নিয়ে গতকাল বেলা ১১টায় ওই সমাবেশ হয়। সমাবেশে বক্তব্য দেন জেলা প্রশাসক আবু ছালেহ মোহাম্মদ ফেরদৌস খান, পুলিশ সুপার মেহেদুল করিম ও সিভিল সার্জন আমিনুল ইসলাম।

জেলা প্রশাসক বলেন, ‘ধূমপানমুক্ত সমাজ গড়তে আমরা প্রচারণা শুরু করলাম।’ পুলিশ সুপার বলেন, ‘১৮.১৮ স্মরণীয় দিন। এই দিনে আমরা শুরু করলাম, ১৮ বছরের নিচে কারও কাছে বিড়ি-সিগারেট বিক্রি করব না।’ সিভিল সার্জন আমিনুল ইসলাম বলেন, বিড়ি-সিগারেট খেলে ফুসফুসে ক্যানসারসহ নানা রোগ হয়। এগুলো থেকে কিশোরদের দূরে রাখতে হবে।

কর্মসূচিতে বাংলাদেশ পুলিশ, স্বাস্থ্য বিভাগ, স্কাউট, শিল্পকলা একাডেমি, প্রথম আলো বন্ধুসভাসহ বিভিন্ন সামাজিক সংগঠন অংশ নেয়।

এরপর ব্যানার-ফেস্টুন নিয়ে শোভাযাত্রা শহর প্রদক্ষিণ শেষে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রা শেষে উপস্থিত সবাই চারটি দলে বিভক্ত হয়ে শহরে প্রতিটি দোকানে স্টিকার লাগিয়ে দেন।

শিক্ষার্থী রাসেল (১৮) বলেন, ‘কাজটি খুবই ভালো লেগেছে। আগে কখনো প্রশাসনের লোককে এমন কাজ করতে দেখিনি।’ পানের দোকানদার মফিজুল ইসলাম বলেন, ‘চ্যাংগরাগুইলা বিড়ি-সিগারেট চাবার আসলে পুলিশো কয়া দেইম। মুই বেঁপার নোং।’

জেলা শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ রাশেদুজ্জামান বাবু বলেন, কাজটি এলাকার মানুষ সমর্থন করেছে।

Comments

comments

আরও পড়ুনঃ   প্রধান বিচারপতিকে নিয়ে স্টেটসম্যানের সম্পাদকীয়

একটি উত্তর লিখুন

Please enter your comment!
Please enter your name here

nineteen + four =